অসাধারণ নাচের সাথে দুর্দান্ত অভিনয় দক্ষতা, তারপরেও কখনো প্রধান চরিত্র পাননি অরুনা ইরানি

21

সালটা ১৯৪৬ অরুণা ইরানি জন্মেছিলেন বোম্বে শহরের বুকে। অরুণা ইরানির সাত ভাইবোনের সংসার। সেখান থেকে তিনি অভিনয় জগতে এসেছিলেন। ১৯৬১ সালে ‘গঙ্গা যমুনা’ চলচ্চিত্রের মাধ্যমে তার অভিনয় জগতে আসা। অবশ্য এই ছবিতে তিনি শিশু শিল্পী হিসেবে অভিনয় করেছিলেন। তারপর ১৯৬২ সালে ‘আনপড়’ ছবিতে মালা সিনহার কিশোরী বয়সের চরিত্রে অভিনয় করে দর্শকদের মন জয় করে নেন। এরপর তিনি বহু হিন্দি ছবিতে অভিনয় করেছেন। তার মধ্যে ‘বম্বে টু গোয়া’, ‘গরম মসালা’, ‘ও দো ফুল, ‘খুন পাসিনা’-র মতন বিখ্যাত ছবিতে তাকে অভিনয় করতে দেখা গেছে।

আরও পড়ুন:   ‘সুশান্তের মৃত্যু নিয়ে মিডিয়া সার্কাস তৈরী করছে', রিয়ার পক্ষ নিয়ে সরব হলেন বিদ্যা বালান

অভিনেত্রীর পিতার অর্থনৈতিক অবস্থা মোটেই ভালো ছিল না। নিজের সংসার চালানোর জন্য তাকে অভিনয় জগতে আসতে হয়। টাকা উপার্জনের জন্য তিনি বিভিন্ন জায়গায় অডিশন দিতেন। তার অভিনয় করার একমাত্র উদ্দেশ্য ছিল টাকা উপার্জন করা। তার জন্য তিনি মায়ের চরিত্রেও অভিনয় করেছেন।

আরও পড়ুন:   একটুকরো তোয়ালে দিয়ে ঢাকা সারা শরীর, জ্যাকলিনের যৌবনের আগুনে পুড়ছে সোশ্যাল মিডিয়া

অভিনেত্রী নিজের পরিবারের বড় সন্তান ছিলেন। তার এক ভাই হলেন ইন্দ্র কুমার তিনি ছিলেন একজন নামী প্রযোজক এবং পরিচালক। ফিরোজ ইরানি গুজরাতি ছবিতে অভিনয় করেন এবং আদি ইরানি হিন্দি ছবি এবং ধারাবাহিকে অভিনয় করেন। তার পরিবারের সকল সদস্যরাই প্রায় অভিনয় জগতের সঙ্গে যুক্ত।

পার্শ্ব চরিত্রে অভিনয় করার পাশাপাশি তিনি খুব সুন্দর নাচ করতে পারতেন। বহু হিট গানে তাকে নাচ করতে দেখা গেছে। তাকে বলিউডের বিভিন্ন ছবির পাশাপাশি ধারাবাহিকেও অভিনয় করতে দেখা যায়। তিনি নিজের অভিনয় দক্ষতার মাধ্যমে একটি অতি পরিচিত মুখ হয়ে উঠেছিলেন। তবে একের পর এক হিট ছবিতে অভিনয় করার পরেও তিনি কখনোই কোনো ছবির নায়িকা হতে পারেননি। তবে এজন্য অভিনেত্রীর মনে কোনো আফসোস নেই।