কমবয়সীদের ‘জঙ্গি’দলে টানতে নয়া ফাঁদ! হাতে এলো চাঞ্চল্যকর তথ্য

একদিকে করোনা আতঙ্কে ভুগছে গোটা দেশ। তারই মাঝে লাদাখে চিন সীমান্তে ক্রমেই বাড়ছে উত্তেজনা। এর মাঝেই লাগাতার জঙ্গি দমনে অভিযান চালিয়ে যাচ্ছে ভারতীয় সেনা। আর তাতে একের পর এক সাফল্যও আসছে। কিন্তু এই সব কিছুর মাঝেই আত্মসমর্পণ করার এক জঙ্গির কাছ থেকে উঠে আসল এক চাঞ্চল্যকর তথ্য।

গত কয়েকদিন ধরে জম্মু-কাশ্মীরে একের পর এক জঙ্গি দমন অভিযান চালিয়ে যাচ্ছে ভারতীয় সেনা। সমীক্ষা বলছে ভারতীয় সেনা, সিআরপিএফ ও জম্মু-কাশ্মীর পুলিশের একের পর এক যৌথ অভিযান জঙ্গি দমনে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রেখেছে। কিন্তু সমস্যা অন্য জায়গায়। জঙ্গি দমনে সেনা পুলিশ তৎপর হয়ে ওঠায় অন্য উপায়ে অল্প বয়সীদের দলে টানতে চাইছে জঙ্গি নেতারা।

বর্তমানে জঙ্গি সংগঠনে ভর্তির প্রক্রিয়া নাকি সম্পূর্ণ বদলে দেওয়া হয়েছে। এই প্রসঙ্গে কাশ্মীরের এক সরকারি আধিকারিকের তরফে জানানো হয়েছে, আত্মসমর্পণ করার এক জঙ্গি দাবি করেছে বর্তমানে সোশ্যাল মিডিয়া ও অ্যাপের মাধ্যমে সংগঠনে নেওয়া টানা হচ্ছে। তাছাড়াও ফেক ভিডিয়র মাধ্যমে সাধারণ মানুষের উপর সেনা বা প্রশাসন অত্যাচার করছে এইসব দেখিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে দিয়ে ফায়দা তোলার চেষ্টা করছে। এমনকি লস্কর-ই-তৈবার নেতাদের সাহায্যে আইএসআই উপত্যকায় স্লিপার সেল তৈরি করে ফেলেছে। শুধু তাই না পুরনো বছরের শেষ দিকে দক্ষিণ কাশ্মীরে ৪০ জন কমবয়সী ছেলেকে দলেও টেনেছে জঙ্গি সংগঠনগুলি।

অন্যদিকে, কেন্দ্রীয় সরকারের এক হিসেব বলছে, সংবিধানের ৩৭০ ধারা বিলোপের পর জম্মু-কাশ্মীরে জঙ্গি কার্যকলাপ উল্লেখযোগ্যভাবে অনেকটাই কমে গিয়েছে। সমীক্ষা বলছে জম্মু-কাশ্মীরে ৫৫ শতাংশ জঙ্গি কার্যকলাপ কমেছিল শেষ বছরে। প্রশাসনে চাপ বাড়াতেই অল্প বয়সীদের দলে টানার চেষ্টা করছে জঙ্গিরা।