জোর কটাক্ষ মোদিকে, ভোটের প্রচারে বেরিয়ে প্রধানমন্ত্রীকে এক হাত নিলেন লাভলি মৈত্র

সোনারপুর দক্ষিণ বিধানসভা কেন্দ্র থেকে লড়ছেন জলনুপুর খ্যাত লাভলি মৈত্র। এখন প্রচারের চরম পর্যায়ে রয়েছেন তিনি। শুধু লাভলি নয়, অন্যান্য প্রার্থীরাও চুটিয়ে ভোটের প্রচারে নেমেছেন। কিন্তু লাভলি যে এতটা ঘাসফুল দরদী ছিলেন তা এতদিনে কেউ টের পাননি। এদিকে প্রার্থী হওয়ার পরেই সদ্য প্রচারের আলোয় এসেছেন অভিনেত্রী।

এদিন সভায় এসে দিদির পাশে থাকার প্রতিশ্রুতি দিলেন লাভলি মৈত্র। মনোনয়ন পত্র জমা দেওয়ার সময় লাভলি সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে বলেন, ‘দলের এত কর্মী-সমর্থকের ভালোবাসা এবং সম্মানে আপ্লুত। এটা জীবনের অন্যতম স্মরণীয় দিন।’ জয়ের ব্যাপারেও সম্পূর্ণ আশাবাদী লাভলি। তিনি বলেন, ‘বিরোধী দলের কোনও ক্যাপ্টেন নেই এবং খেলোয়াড়ও নেই।’

সম্প্রতি এক সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমে সাক্ষাৎকার দেওয়ার সময় লাভলি মৈত্র “বিজেপিকে (BJP) কেন ভোট দেওয়া উচিত নয়?” এই প্রশ্নের উত্তরে বলেন – ”খুবই সহজ উত্তর। বিজেপিকে ভোট দিলে মানুষ ঠকবেন। শুনছি নাকি আমাদের প্রধানমন্ত্রী দশ লক্ষ টাকার স্যুট পরেন। কিন্তু তিনি একাই শুধু পরেন না, তিনি মানুষকে ১৫ লক্ষ টাকার টুপিও পরান। প্রতিশ্রুতি যা দেন, তা পালন করেন না। এই তো গত লোকসভা ভোটে প্রচুর প্রতিশ্রুতি দিলেন ওদের প্রার্থীরা। মানুষও বিশ্বাস করে ১৮টি আসনে তাঁদের নির্বাচিত করলেন।কিন্তু তারপর আর দেখা যায়নি তাঁদের। ফলে প্রতিশ্রুতি দেওয়া আর রাখা থেকে বহু দূরে বিজেপি। সেটা একমাত্র করে তৃণমূল সরকার। এছাড়া বিজেপি মহিলাদের সম্মান করতে পারে না। দেখুন না, আমাকেই ‘অমুকের স্ত্রী’ বলে বারবার চিহ্নিত করছে। আসলে ওরা মেয়েদের আলাদা পরিচিতি তৈরি হোক, সেটাই চায় না। মা-বোনেদের সম্মান যাঁরা করতে পারেন না, তাঁদের ভোট দেওয়ার অর্থ নেই বলেই মনে করি।”

অবশ্য সব প্রশ্নের উত্তর পাওয়া যাবে মে মাসের ২ তারিখ। ইতিমধ্যে দুই দল যুদ্ধক্ষেত্রে তৈরি। কিছু জায়গায় ভোট প্রক্রিয়া শুরু হয়ে গিয়েছে, এখনও বেশ কিছু দফা বাকি। রাজ্যবাসী শুধুমাত্র ফলাফলের দিকে তাকিয়ে আছে।