নায়িকাদের পর এবার গায়িকা, তৃণমূলে যোগদান করলেন রাইকিশোরী অদিতি মুন্সী

সংগীত জগতের ‘রাইকিশোরী’। তাঁর কণ্ঠে কীর্তন যেন আলাদাই মাত্রা পায়। এই ধারার সঙ্গীতের একজন গায়কের নাম আগে মাথায় আসে। তিনি আর কেউ নয় অদিতি। অদিতির মুন্সিয়ানা বারে বারে ভক্তি রসে বুঁদ করেছে বাঙালি শ্রোতাকে। হরি নাম এখন সংকীর্তনের নতুন নক্ষত্র। জনপথে এককালে শ্রীচৈতন্য যা করতেন ইতিহাসে এখন অদিতি তাই করেন তবে নিজস্ব ঢঙে। তাঁর গানের সুরে বর্তমান প্রজন্ম হাতে গিটার না ধরেই অঙ্গ ভঙ্গির সঙ্গেই হাত তুলে হরি বল, হরি বল করে। প্রাচীন রিতি ভেঙে নতুন রুপ দেন আর এখানেই তাঁর মুন্সি।

উত্তর ২৪ পরগনা যুব তৃণমূল সভাপতি দেবরাজ চক্রবর্তী। সারেগামাপা থেকে জনপ্রিয়তার পাওয়ার পর নানান জায়গায় অনুষ্ঠান করতে যান গায়িকা। সেখান থেকেও দেবরাজের সাথে আলাপ, বন্ধুত্ব, প্রেম। এরপরই দেবরাজ এবং অদিতি সাতপাকে বাঁধা পড়েন। ২০১৮ সালে তৃণমূল নেতা দেবরাজ চক্রবর্তীর সঙ্গে বিয়ে হয় অদিতি মুন্সির। বিয়ের পর স্বামী আর শ্বশুর মশাইয়ের সূত্রে প্রায়শই রায়কিশোরীকে দেকগা যেত তৃণমুল কংগ্রেসের নানান অনুষ্ঠানে। বিয়ের প্রায় ৩ বছরের মাথায় এবার রাজনীতির ময়দানে পা রাখলেন অদিতি মুন্সি।

বৃহষ্পতিবার লক্ষীবারের দিন তৃণমূল ভবনে মন্ত্রী সৌগত রায়ের হাত থেকে দলীয় পতাকা তুলে নেন অদিতি। অদিতি মুন্সি মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি কে প্রাণের দিদি বলে সম্বোধন করেন। মুখ্যমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানান তাঁকে যোগ্য মনে করার জন্য। আরো বললেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যেখানে আছেন, সেখানে সততা রয়েছে। এছাড়া তিনি মুখ্যমন্ত্রীকে বাংলার রুপকার বলেও সম্মান জানান। শোনা যাচ্ছে এবারের বিধানসভার প্রার্থী হিসেবে তিনি মনোনীত হবেন তবে কোন এলাকার হয়ে লড়বেন তা কিছু জানা যায়নি।

তোমায় হৃদমাঝারে রাখবো, ছেড়ে দেবো না” গানটি গান। গানের শেষে দলীয় পতাকা হাতে নিয়ে দলের নতুন সদস্য হিবেসে যোগ দেন গায়িকা। সামনে বিধানসভার ভোটে অনেকে পাখির চোখ করে বসে আছেন। ২৭শে মার্চ থেকে রাজনীতির ময়দানে প্রার্থীদের মধ্যে খেলা হবে বেশ জোড়কদমে। নির্বাচনের আগে তৃণমূল কংগ্রেসের তপ্রফ থেকে একের পর এক চমক থাকছে। ২রা মে ভোটের রেজাল্ট। শেষ হাসি কে হাসবে সেটাই এখন দেখার।