প্লাস্টিক সার্জারি করেই কাল হলো অভিনেত্রীর, বলিউড থেকে হারিয়ে গেলেন আয়েশা টাকিয়া

স্বপ্নালু চোখ, মিষ্টি হাসি নিয়ে পর্দায় এসেছিলেন আয়েশা। যখন আয়েশা পর্দায় আসেন তখন তার বয়স মাত্র ৪। বলিউডের চকলেট হিরো শাহিদ কাপুরের সঙ্গে হেলথ ড্রিংক কমপ্ল্যান এর বিজ্ঞাপনে দেখা যায়। এরপর আয়েশা যখন আরেকটু বড় হয় তখন ফাল্গুনী পাঠকের ‘মেরি চুনর উড় উড় যায়ে’র সুরে নাচ করেন। অসাধারণ মিষ্টি এই মেয়েটা আচমকা বদলে যায় যখন টারজান: দ্যা ওয়ান্ডার কার ছবিতে আসেন।

মহারাষ্ট্রের মুম্বাইয়ে গুজরাটি হিন্দু পিতা এবং মুসলিম মায়ের ঘরে জন্মগ্রহণ করা এই মেয়ে অর্থাৎ ‘কমপ্ল‍্যান গার্ল’ অবশ্য টারজান: দ্যা ওয়ান্ডার কার দিয়ে বলিউডে পা ফেলননি, এরও আগে তিনি মাত্র ১৫ বছর বয়সে অভিনয় করেন অভয় দেওলের বিপরীতে সোচা না থা ছবিতে।

তবে, তার প্রথম ছবি টারজান: দ্যা ওয়ান্ডার কার ছবির জন্য তিনি ফিল্মফেয়ার বেষ্ট ডেব্যুট এ্যাওয়ার্ড ২০০৪ লাভ করেন। তার সবচেয়ে জনপ্রিয় ব্যাবসাসফল ছবির মধ্যে ২০০৯ ছবি ওয়ান্টেড অন্যতম। এরপর পর মার্চ ১, ২০০৯ সালে অভিনেত্রী তার প্রেমিক ফারহান আজমিকে বিয়ে করেন। একটি পুত্র সন্তানও হয় তার।

অভিনয় জীবনে থাকাকালীন প্লাস্টিক সার্জারির সাহায্য নেন আয়েশা। তার ঠোঁট, গেল, নাকের আমূল পরিবর্তন আসে। শুধু মুখমণ্ডল নয়, শারীরিক কাঠামো এমন ফুলে ফেঁপে ওঠে যেখানে দাড়িয়ে অনেকের দাবি ব্রেস্ট ইমপ্ল‍্যান্ট করিয়েছেন তিনি। যদিও এই কথা পুরোটাই অস্বীকার করেছেন আয়েশা। এই ব্যাপারে অভিনেত্রীর দাবি, কয়েকজন মতলব করেই নাকি তাঁর বিকৃত ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে দিয়েছেন। অথচ ছবি ও ভিডিওতে স্পষ্ট ঠোঁটের প্লাস্টিক সার্জারি করিয়েছেন তিনি। কিন্তু এত কিছু করেও বলিউড থেকে হারিয়েই গেলেন সেই মিষ্টি মেয়ে।