যৌনাঙ্গে রড ঢুকিয়ে, পায়ের হাড় ভেঙে নৃশংস গণধর্ষণ উত্তরপ্রদেশে

গত ৩ মাস আগে উত্তরপ্রদেশের যোগী রাজ্যে হাতরাস ঘটনার রেষ কাটতে না কাটতে ফের আরও এক নৃশংস ধর্ষনের ঘটনা সামনে এসেছে। সেই একই রাজ্যে আবারও একই মর্মান্তিক ঘটনার পুনরাবৃত্তি। দিল্লির ভয়ঙ্কর নির্ভয়া কান্ডের কথা গোটা দেশের মানুষের এখনও স্পষ্ট মনে রয়েছে। রড দিয়ে নির্মম ভাবে মেরে ফেলা হয় ধর্ষিতাকে। ফের রবিবার উত্তরপ্রদেশের বদায়ুঁ জেলায় একইভাবে গাড়িতে গণধর্ষণ করা হয় এক ৫০ বছরের প্রৌঢ়াকে।

তাকে মধ্যরাতে রাস্তার পাশ থেকে রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়। জানা গিয়েছে, ধর্ষনের পর তার যৌনাঙ্গে রড ঢুকিয়ে দেওয়া হয়। শুধু তাই নয়, সেই রড দিয়ে ওই প্রৌঢ়াকে মারা হয়। আর তার ফলে প্রৌঢ়ার পাঁজর ও পায়ের হাড় ভেঙে যায়। এর ফলে ওই প্রৌঢ়ার এতটাই রক্তপাত হয় যে তার গোটা শরীর সাদা হয়ে যায়। জানা গিয়েছে, রবিবার স্থানীয় মন্দিরে পুজো দিতে যান ওই প্রৌঢ়া।

অনেক রাত হয়ে গেলে বাড়ি না ফেরায় থানায় অভিযোগ দায়ের করে পরিবার। এরপর ঘটনাস্থল থেকে প্রৌঢ়াকে উদ্ধার করা হলে তড়িঘড়ি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। কিন্তু তাকে বাঁচানো সম্ভব হয়নি। পরিবার এরপর থানায় ধর্ষণ ও খুনের মামলা দায়ের করে। বুধবার সকালে দুইজনকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

প্রৌঢ়ার দেহ ময়নাতদন্তের পর রিপোর্টে জানা যায়, তার বুকে ও ও পায়ের উপর ভারি কোনো জিনিস বারবার ফেলা হয়েছিল। আর তার ফলে বুকের পাঁজর ও পায়ের হাড় ভেঙে যায়। পরিবার জানিয়েছে, পুলিশ সোমবার দুপুরে ঘটনাস্থল ঘুরে আসে। এছাড়া কোনোরকম পদক্ষেপ নেয়নি। এই ঘটনায় পুলিশি নিষ্ক্রিয়তার অভিযোগ তুলেছে পরিবার।