সন্তানের মুখ দেখার আগেই প্রয়াত অভিনেতা চিরঞ্জীবী, একরত্তি খুদের ছবি পোস্ট করলেন স্ত্রী মেঘনা

News Desk

June 12, 2021 | 4:20 AM
blog image

বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়েছিলেন মাত্র দুই বছর আগে। গত ৭ই জুন হঠাৎই সকলকে ছেড়ে নিরবে না ফেরার দেশে চলে গেলেন দক্ষিণের জনপ্রিয় অভিনেতা চিরঞ্জীবী সারজা। এরপর জানা যায়, তার স্ত্রী মেঘনা রাজ অন্তঃসত্ত্বা। মাত্র ৩৯ বছর বয়সে পরিবারের আগত নতুন সদস্য ও বাকি সকলকে ছেড়ে অকালেই চলে যান তিনি। হঠাৎই হৃদযন্ত্র বিকল হয়ে মারা যান চিরঞ্জীবী সারজা।

এরপর তার অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীর পাশে মানসিক ভাবে দাঁড়ান সকলে। এরপর গত অক্টোবর মাসে একটি পুত্র সন্তানের জন্ম দেন প্রয়াত অভিনেতা চিরঞ্জীবীর স্ত্রী মেঘনা রাজ। ২০২০ সালে এমন অনেক অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা ঘটেছে যা আমাদের হৃদয় নাড়িয়ে দিয়েছে। তার মধ্যে অভিনেতা চিরঞ্জীবীর মৃত্যু নিঃসন্দেহে একটি। আগত সন্তানের ছোঁয়া পাওয়ার আগেই চির দিনের জন্য হারিয়ে গিয়েছেন তিনি।

মেঘনা রাজ তার সন্তান ভূমিষ্ট হওয়ার পর সোশ্যাল মিডিয়ায় তার একটি ছবিও প্রকাশ করেননি। তবে সম্প্রতি একটি ছবি পোস্ট করেছেন যেখানে দেখা যাচ্ছে একটি ছোট্ট হাতকে স্পর্শ করেছে আরও একটি হাত। আজ চিরঞ্জীবী বেঁচে থাকলে হয়তো এভাবেই তার ছেলের ছোঁয়া পেতেন। আর এই ছবি দেখেই আবেগে ভাসেন অনুগামীরা।

সকলেই নতুন সদস্যকে শুভেচ্ছা ও ভালোবাসা জানিয়েছেন। এর আগে কখনও সোশ্যাল মিডিয়ায় ছেলের ছবি পোস্ট করেননি মেঘনা। অক্টোবরে ঘর আলো করে আসে ছোট্ট চিরু। এরপর করোনার থাবা গ্রাস করে গোটা পরিবারকে। সেই লড়াই থেকে সুস্থ হয়ে এবার ছেলের হাতের একটি ছবি পোস্ট করেছেন মেঘনা।

আরও পড়ুন :   প্রিয় স্ত্রী ও আদরে কন্যাকে নিয়ে স্বর্ণমন্দিরে পুজো দিলেন অভিনেতা Jeet, রইল ছবি


আরও পড়ুন

সামান্য পোশাকে উন্মুক্ত উরু, বেরিয়ে আসছে স্তনযুগলের একাংশ সুপার সেক্সি লুকে সারা

স্নানের পোশাকে স্পষ্ট বক্ষ যুগল, বোল্ড অবতারে সকলের নজর কাড়লেন রাইমা সেন

প্রকাশ্যে এল সংযুক্তার আসল চেহারা, তবে কি প্রাক্তন নিরুপমার কাছে ফিরবে আবির ?

সাতপাকে বাঁধা পড়লেন ‘গঙ্গারাম’সিরিয়ালের ‘টায়রা’, অভিনেত্রী সোহিনীকে শুভেচ্ছায় ভরাল নেটিজেনরা

শ্রাবন্তীর জীবনে নতুন সুপারস্টার, রোশনকে ভুলে নয়া ইনিংস শুরু করলেন অভিনেত্রী

মেয়েদের দেখলেই উত্তমকুমার খেয়ে ফেলতেন না, মহানায়কের চরিত্র নিয়ে অকপট শকুন্তলা বড়ুয়া

সাদা থান ছেড়ে স্টাইলিশ লুকে সোশ্যাল মিডিয়ায় বাজিমাত রানীমা দিতিপ্রিয়ার!