হাসিমুখে ভোটের প্রচারে প্রমিতা, মানুষের ভালোবাসা পেয়ে আপ্লুত ‘বধূবরণ’-এর কনক

আধার কার্ড অনুযায়ী এই অভিনেত্রীর নাম প্রমিতা চক্রবর্তী। তবে তাঁর নাম যতই প্রমিতা হলেও তাঁকে বেশিরভাগ মানুষই ‘সাত ভাই চম্পা’র পারুল বা ‘বধূবরণ’-এর কনক নামেই ডাকতে বেশি পছন্দ করেন। শেষবার অভিনেত্রীকে স্টার জলসার ‘নীল আকাশের নীচে ‘ ধারাবাহিকের ডঃ ঝিনুক চরিত্রে দেখা গিয়েছে। বেশ কিছুদিন হল প্রমিতাকে ছোটো পর্দায় দেখা যাচ্ছে না। তবে নানান বিজ্ঞাপনের শ্যুটিং এর কাজে বেশ ব্যস্ত রয়েছেন। টলিপাড়ায় গুঞ্জন আছে তিনি খুব শীঘ্রই অভিনয়ের কাজে ফের কামব্যাক করতে চলেছে। তাঁর অনুরাগীদের আশ্বাস, ফের নতুন ভাবে নতুন রূপে অভিনয়ে ফিরবেন প্রমিতা।

তবে ‘সাত ভাই চম্পা’ ধারাবাহিকে পারুলের চরিত্রে অভিনয় করার সময়ে ধারাবাহিকের মূল চরিত্র রাঘবেন্দ্রর প্রেমে পড়েন। ধারাবাহিকের রুপকথার মতো প্রমিতা রুদ্রজিতের প্রেমের গল্পের কাহিনী শুরু হয়। এরপর থেকেই দর্শকের প্রিয় এই জুটি রুমিতা হয়ে উঠেছে। নিজেদের প্রেমের সম্পর্ককে পরিণতি দিতে সম্প্রতি ১৪ ই ফেব্রুয়ারি ভালোবাসার দিনে পুরুলিয়াতে বেশ জাঁকজমক ভাবে পরিবার আর ঘনিষ্ঠ বন্ধুদের উপস্থিতিতে রিয়েল লাইফে ঘর বাঁধলেন রুমিতা। সোশ্যাল ম্যারেজ করবেন পরের বছর তার আগেই বাগদান এবং রেজিস্ট্রি ম্যারেজ সেরে নিলেন বেশ ধুমধাম করে। বাগদানের আগে পুরুলিয়ার অযোধ্যা পাহাড়ে প্রিওয়েডিং ফটোশুট ও করেছিলেন।

বাগদান সাড়ার পর দুজনেই দুজনের কাজ নিয়ে বেশ ভালোই ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন। এবার অভিনেত্রীর একটি ছবি প্রকাশ্যে আসে। ছবিতে দেখা যাচ্ছে মাথার উপর গাঁদা ফুলের ছড়াছড়ি। আবার গলায় গাঁদা ফুলের মালা। প্রমিতা সবুজ শাড়ি পড়ে খোলা জিপে চড়ে মুখে একরাশ হাসি নিয়ে প্রচারে বেরিয়েছেন তিনি। তাহলে কি কোনো নতুন সিনেমা বা ধারাবাহিকের শ্যুটিং। না এটা কোনো ধারাবাহিক বা সিনেমার শ্যুটিং নয়। সামনে ২১ এর বিধানসভার ভোট আর সেই ভোটের প্রচারে অভিনেত্রীকে দেখা গেল।

এখনো অভিনেত্রী সরাসরি কোনো দলে নাম না লেখালেও তিনি বরাবর তৃণমূল কংগ্রেসের নেত্রী মমতা ব্যনার্জীকে শ্রদ্ধা করতেন। মুখ্যমন্ত্রীর অনুরাগী তিনি। মুখ্যমিন্ত্রীকে মন থেকে বিশ্বাস করেন বলেই হাজার ব্যস্ততার মধ্যে শাসক দলের প্রচারে গিয়েছেন তিনি। ইতিমধ্যে পশ্চিমবঙ্গে বিধানসভা নির্বাচন শুরু হয়ে গিয়েছে। এক দফা নির্বাচন ও শেষ। এই নির্বাচনী প্রচার শুরু হওয়ার পর দলীয় প্রার্থীদের সমর্থনে বিভিন্ন জায়গায় প্রচারে গিয়েছেন অভিনেত্রী। মহিষাদলে জিপে করে হাসিমুখে সাধারণ মানুষের ভিড়ে মিশে গেলেন। সকলের প্রিয় পারুলকে দেখার জন্য মানুষের ভিড় ও উপচে পড়ছিল। অনেকের সাথে সেলফিও তোলেন। আর সেই সব মুহূর্ত সোশ্যাল মিডিয়াতে বেশ ভালোই ভাইরাল হয়।