তীব্র রোদে অসুস্থ এক স্বাস্থ্যকর্মী, রাস্তায় মধ্যেই পড়ে রইলেন আধ ঘণ্টা

তারা সামনে থেকে করোনার সংক্রমণ নিয়ে কাজ করছে। স্বাস্থ্যকর্মীরাও চিকিত্সক, নার্স এবং পুলিশদের সাথে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছেন। তাদের মধ্যে অনেকে করোনভাইরাসতে আক্রান্ত। তারা এখনও তাদের কাজ করছেন। এবার তীব্র রোদে এক স্বাস্থ্যকর্মী অসুস্থ হয়ে পড়েন। আধঘণ্টা রাস্তায় শুয়ে থাকার পরেও মেডিকেল কলেজ তাকে ভর্তি করেনি। শেষ পর্যন্ত তাকে জেলা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

ঘটনাটি ঘটেছে মধ্য প্রদেশের সাগর জেলায়। স্বাস্থ্যকর্মীর নাম হীরালাল প্রজাপতি। তিনি ১০৮ টি অ্যাম্বুলেন্স সেবায় কাজ করেন। হিরালাল অন্যান্য দিনের মতো বুধবারও তার কাজ করছিলেন। কর্মী সাগর টিবি হাসপাতাল থেকে অ্যাম্বুলেন্সে করে বুন্দেলখন্ড মেডিকেল কলেজে করোনায় আক্রান্ত রোগীদের নিয়ে যাচ্ছিলেন।

বুধবার মধ্য প্রদেশে তাপমাত্রা ছিল 44 ডিগ্রি সেলসিয়াস। এই জ্বলন্ত উত্তাপে কাজ করতে করতে দুপুর ২ টার দিকে হীরালাল অসুস্থ হয়ে পড়েন। সে রাস্তায় পড়ে গেল। স্থানীয়দের মতে, হীরালাল সারা শরীরে পিপিই কিট পরেছিলেন। তার জন্য, গরমে তাঁর শরীর আরও অসুস্থ হয়ে পড়েছিল। তিনি বুন্দেলখণ্ড মেডিকেল কলেজের বাইরের রাস্তায় পড়ে যান।

অ্যাম্বুলেন্সের চালক বারবার হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে তার সহকর্মী অসুস্থ থাকায় স্বাস্থ্যকর্মীকে ভর্তি করতে বলেছিলেন। কিন্তু সেই আবেদন কেউ শুনেনি। এই পরিস্থিতিতে, হীরালাল 25 মিনিটেরও বেশি সময় ধরে রাস্তায় পড়ে ছিলেন।

বুন্দেলখণ্ড মেডিকেল কলেজ শ্রমিককে ভর্তি না করে অ্যাম্বুলেন্স চালক হীরালালকে জেলা হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে তাকে ভর্তি করা হয়েছিল। হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, বর্তমানে তার অবস্থা স্থিতিশীল রয়েছে।

এই ঘটনার পরে সমালোচনা শুরু হয়েছিল। মধ্যপ্রদেশে স্বাস্থ্যকর্মীদের আক্রমণ করা হয়েছিল। এ সময় প্রশাসন কঠোর পদক্ষেপ নেয়। তবে এক্ষেত্রে বুন্দেলখণ্ড মেডিকেল কলেজ অমানবিক আচরণ করেছে। সরকার বারবার ডাক্তার, নার্স এবং স্বাস্থ্যকর্মীদের যত্ন নিতে বলেছে। প্রশাসনকে তাদের নিরাপত্তা দেখাশোনার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

একজন স্বাস্থ্যকর্মী 25 মিনিটেরও বেশি সময় ধরে রাস্তায় পড়ে ছিলেন তবে তার চিকিত্সা করা হয়নি। মেডিকেল কলেজ তাকে ভর্তি করেনি। স্বাস্থ্যকর্মীরা এমন অবস্থায় থাকলে সাধারণ মানুষের কী হবে সে প্রশ্ন বারবার উঠে আসছে।