বিনোদন

সুযোগ পেলেই সাল্টে দেব! দিদি নং ১ এর মঞ্চে দাঁড়িয়ে প্রসেনজিৎকে কী বলেন স্ত্রী অর্পিতা?

২০০২ সালে বিয়ে করেন প্রসেনজিৎ-অর্পিতা। দেখতে দেখতে ১৯ টা বসন্ত পার করে দিলেন এই জুটি। এখনও চির যৌবন সম্পর্ক অটুট রেখেছেন এঁরা। সম্প্রতি, দিদি নং ১ এ এসেছিলেন গ্ল্যামারাস অর্পিতা। শীতের সন্ধ্যায় দিদি নং ১ শোয়ের গ্ল্যামার আরো দ্বিগুণ করেন অর্পিতা, শোনান বুম্বাদা সম্পর্কে সিক্রেট গল্প।

দিদি নং ১ প্রতিবার বহু সেলিব্রিটি এসেছেন। তাদের মনের কথা উজাড় করে দিয়েছেন, পাশাপাশি খেলা বাংলার দর্শকদের মন ছুঁয়ে গেছে। বিভিন্ন সময় বিভিন্ন মেয়েরা আসেন, জানান মনের সুখ দুঃখের কথা। সেরকমই, সম্প্রতি দেখা যাবে প্রসেনজিৎ স্ত্রী অর্পিতা চট্টোপাধ্যায়কে এই শোতে।

আরও পড়ুন:   সরে গেলেন রচনা! ‘দিদি নং ১’ এ নতুন সঞ্চালক 'রান্নাঘরের রানী' সুদীপা

দিদি নং ১ খেলায় একটি জায়গায় প্রতিযোগীদের কানে হেড ফোন দিয়ে দেওয়া হয়, তাতে গান চলে, অন্যদিকে একজন বিভিন্ন শব্দ উচ্চারণ করেন। উত্তর সঠিক বলতে হবে, আর সঠিক উত্তর দিলেই প্রাইজ। এদিকে অর্পিতার কানে হেড ফোন, তাকে রচনা বন্দোপাধ্যায় জিজ্ঞাসা করছেন, মাঝে মধ্যে বুম্বাদা’কে কি বলতে ইচ্ছা করে? উত্তরে অর্পিতা ম্যাডাম বলেন, “উল্টে দেব, পাল্টে দেব, সুযোগ পেলেই সালটে দেব”। ব্যাস এরপরেই ওঠে হাসির রোল। তবে গল্প এখানেই শেষ নয়, আছে আরো ধামাকা।

আরও পড়ুন:   ডিভোর্সি নাকি আলাদা থাকেন? নিজের ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে মুখ খুললেন রচনা ব্যানার্জি

রচনা বন্দোপাধ্যায়ের কাজই হল, প্রতিযোগীদের মনের গোপন কথা টেনে বার করা, সেরকমই অর্পিতার থেকে বুম্বাদা অর্থাৎ প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়ের দৈনন্দিন জীবনের সিক্রেট শুনতে চাইছিলেন রচনা, তার প্রশ্ন ছিল – বুম্বাদা বাড়ির কাজকর্মে হেল্প করে? কিন্তু, অর্পিতা ম্যাডাম খুবই স্মার্ট। তিনি হাসতে হাসতে জানিয়ে দেন, “মানুষটা তো স্টার, কি করে, কি খায়, ওই হেয়ালিটা থাকা দরকার।” বাকিটা জানার জন্য চোখ রাখতে হবে দিদি নং ১ শোতে, জি বাংলার পর্দায়, আগামী ৭ তারিখ।

Related Articles

Back to top button