বাজারদর

বছরের শুরুতেই বড় ধরনের পতন সোনার দামে, রেকর্ড দরের থেকে সোনালী ধাতুর কমল ৮৪০০ টাকা

একথা সত্য যে, বিশ্ববাজারের পাশাপাশি ভারতীয় বাজারেও সোনার দাম প্রায় বেশিরভাগ সময়ই অধিকাংশ মানুষের নাগালের বাইরে থাকে। আলংকারিক এই ধাতু প্রায় সব মানুষের কোনো না কোনো সময় ক্রয় করার প্রয়োজন হয়, অথচ দাম বেশি হওয়ার কারণে সেই পরিমাণ অর্থ কারোর পক্ষেই একবারে ব্যয় করা সম্ভব হয় না।

সাধারন মানুষদের মধ্যে থেকে অধিকাংশ‌ই এক দীর্ঘ সময় অর্থ সঞ্চয় করার পর তবেই সোনার মত মহার্ঘ্য ধাতু দিয়ে বানানো কোনো গয়না বা অন্য কোনো জিনিস ক্রয় করতে পারেন। তুলনামূলকভাবে ধনী ও উচ্চবিত্ত মানুষেরা এই সমস্যার সম্মুখীন সেভাবে হন না নিজেদের অর্থের জেরে।

আরও পড়ুন:   পুজোর আগে বড়সড় সুখবর, অনেক সস্তা হয়ে গেলো সোনার দাম, জানুন বাজারদর

সোনার পাশাপাশি রুপোর গয়নার‌ও প্রচলন রয়েছে, তবে রূপোর দাম‌ও অনেকটাই বেশি থাকে। কিন্তু সোনা ও রুপোর বাজারদর মাঝে মধ্যে ওঠানামা করে। সেরকমই ঘটেছে গত বৃহস্পতিবার অর্থাৎ ৬ জানুয়ারি।

আরও পড়ুন:   একধাক্কায় অনেকটা কমে গেল সোনা ও রুপোর দাম, হাসি ফুটলো মধ্যবিত্তের মুখে

ভারতবর্ষে বিশ্ববাজারের রেশ ধরে বৃহস্পতিবার খানিকটা হলেও কমেছে সোনার দাম। এমসিএক্স সূচকে ১০ গ্রাম গোল্ড ফিউচার্সের দাম ০.৫ শতাংশ কমে হয়েছে ৪৭,৭৭২ টাকা। রেকর্ড দরের থেকে ৮,৪০০ টাকা কম দামে বর্তমানে অবস্থান করছে এই ধাতুর দাম। বিশ্ব বাজারে এক আউন্স স্পট গোল্ডের দাম কমে হয়েছে ১,৮১০.৫৬ ডলার। বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন, মার্কিন কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্ক ফেডেরাল রিজার্ভের বিজ্ঞপ্তির কারণে বিশ্ব বাজারে সোনার দামের এই পার্থক্য দেখা দিয়েছে।

আরও পড়ুন:   ফের পতন সোনার দামে, সোনালী ধাতুর পাশাপাশি দাম কমেছে রুপোরও

অপরদিকে, দাম কমেছে আরেক আলংকারিক ধাতু রুপোর‌ও। এক কিলোগ্রাম রুপোর দাম ১.৪ শতাংশ কমে দাঁড়িয়েছে ৬১,৩৭০ টাকায়। পাশাপাশি বিশ্ব বাজারেও কম হয়েছে রুপোর দাম। এক আউন্স স্পট সিলভারের দাম ১.১ শতাংশ কমে দাঁড়িয়েছে ২২.৭৮ ডলার।

Related Articles

Back to top button