মসজিদে না গিয়ে বাড়িতেই নমাজ পড়তে বলছেন বাংলার ইমামরা

করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ যাতে আরও ভয়ঙ্কর আকার না নেয়, তার জন্য নিয়ন্ত্রণের সবরকম ব্যবস্থা করছে প্রশাসন। যে কোনো ধরনের জমায়েতে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। যেহেতু ধর্মীয় ক্ষেত্রে জমায়েত বেশি হয়, তাই সেক্ষেত্রে সাবধানতার বার্তা দেওয়া হল।

দেশের অন্যতম বড় তীর্থক্ষেত্র মক্কায় ইতিমধ্যেই নমাজপাঠ বন্ধ হয়ে গিয়েছে। এবারে একই সিদ্ধান্ত জারি হল পশ্চিমবঙ্গের। পশ্চিমবঙ্গের ইমাম অ্যাসোসিয়েশনের তরফ থেকে জানানো হয়েছে, আপাতত কয়েকদিন মসজিদের কাউকে ঢুকতে দেওয়া হবে না।

[আরও পড়ুনঃ গৃহহীন মানুষদের স্কুলে রাখার সিদ্ধান্ত রাজ্য সরকার, জেনে নিন বিস্তারিত]

নির্দেশিকায় বলা হয়েছে কেবল মাত্র ৪৫ জন ইমাম মসজিদের মধ্যে থেকে আজান দেবেন। বাকিরা যাতে বাড়িতে থেকেই নামাজ পাঠ করেন সেই বিষয়ে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। আগামী ৯ এপ্রিল পর্যন্ত এই নির্দেশিকা জারি থাকবে বলে জানানো হয়েছে।

এর আগে সৌদি আরবে মক্কা এবং মদিনায় অবস্থিত দুটো মসজিদের বাইরে নমাজপাঠ বন্ধ করে দেওয়া হয়। কাবা এবং মসজিদের বাইরের চত্বরে নামাজ বন্ধের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সে দেশের প্রশাসন।

প্রতিদিনের নামাজের পাশাপাশি সৌদি আরবের জুম্মার নামাজ স্থগিত করা হয়েছে। গত ফেব্রুয়ারীতে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়া প্রতিরোধ করতে সর্তকতা হিসেবে বিদেশীদের জন্য ওমরাহ করার সুবিধা স্থগিত করে দেয় সৌদি।

কলকাতায় এখনও পর্যন্ত ন’জন করোনা আক্রান্তের সন্ধান পাওয়া গিয়েছে। এর মধ্যে সোমবার একজনের মৃত্যু হয়েছে। মঙ্গলবার দুজনের নতুন করে আক্রান্ত হওবার খবর পাওয়া গিয়েছে। বেলেঘাটা আইডি তে চিকিত্‍সা কি।

দেশের একাধিক শহরের পাশাপাশি কলকাতাতেও জারি হয়েছে লকডাউন। সোমবার বিকেল পাঁচটা থেকে এই লকডাউন জারি করা হয়েছে। ২৭ মার্চ পর্যন্ত এই পরিস্থিতি থাকবে বলে আপাতত নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।
বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে রেল যোগাযোগ। মঙ্গলবার মধ্যরাত থেকে দেশের আকাশে কোনও বিমান উড়বে না।