বিয়ের পরেও রয়েছে নতুন ক্রাশ! দাদার সামনে মুখ খুললেন গায়িকা ইমন চক্রবর্তী

128

এর আগে বিয়ের কয়েক মাসের মাথায় আবীর চট্টোপাধ্যায় (Abir Chatterjee)-কে নিজের ক্রাশ বলেছিলেন ইমন চক্রবর্তী (Iman Chakraborty)। এবার তাঁর ক্রাশ বদলে গেল। সম্প্রতি ‘দাদাগিরি’ সিজন 9-এর শুটিংয়ে উপস্থিত হয়েছিলেন ইমন। সেখানেই ফাঁস করলেন তাঁর ক্রাশের নাম।

‘দাদাগিরি’ সিজন 9-এর শুটিংয়ে এসে শোয়ের সঞ্চালক সৌরভ গাঙ্গুলি (Sourav Ganguly)-র সঙ্গে ছবি তুলে ইন্সটাগ্রাম স্টোরিতে শেয়ার করেছেন ইমন। সোশ্যাল মিডিয়ায় ইমনের অকপট স্বীকারোক্তি, ‘প্রিন্স অফ ক্যালকাটা’-র মতো সত্যিই কেউ নেই। তিনিই ইমনের ক্রাশ।

ইতিমধ্যেই গত শুক্রবার মুক্তি পেয়েছে অভিমন‍্যু মুখার্জী (Abhimanyu Mukherjee) পরিচালিত ফিল্ম ‘লকডাউন’-এর গান ‘তোমার কপালের শীতঘুমে’। বহুদিন পর এই গানে একসঙ্গে কাজ করলেন শোভন (Shobhan) ও ইমন। সোশ্যাল মিডিয়ায় এই গানটি শেয়ার করে শোভনকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন ইমন। প্রমাণ করে দিয়েছেন, তিনি ব্যক্তিগত জীবনের সঙ্গে পেশাদারিত্বকে গুলিয়ে ফেলেন না। ইমন গায়িকা হিসাবে নিজেকে নিয়ে এক্সপেরিমেন্ট করার চেষ্টা করেন। সদ্য মুক্তি পেয়েছে তাঁর গাওয়া আরও একটি গান ‘জগৎ সাজে বৃন্দাবন’। এটি একটি কীর্তন। গানটি ফেসবুকে শেয়ার করে ইমন লিখেছেন, এই প্রথমবার তিনি কীর্তন গাওয়ার চেষ্টা করেছেন। গানটির সুর দিয়েছেন নীলাঞ্জন ঘোষ (Nilanjan Ghosh) ও লিখেছেন আকাশ চক্রবর্তী (Akash chakraborty)। ইমনের এই গান শ্রোতাদের পছন্দ হয়েছে।

আরও পড়ুন:   বিয়ের আগেই সহবাস, সবার সামনে ‘কামসুত্র’ নিয়ে সপাট জবাব রাই সুন্দরীর, তুমুল ভাইরাল ভিডিও

গত পনেরোই অগস্ট ‘ও আমার দেশের মাটি’ গানটি নিজের ইউটিউব চ্যানেলে লঞ্চ করেছেন ইমন। গানটির মিক্স মাস্টারিং করেছেন নীলাঞ্জন ও মিউজিক অ্যারেঞ্জমেন্ট অয়ন মুখোপাধ্যায় (Ayan Mukherjee)। গানটির ভিডিও শুট করেছিলেন দেবর্ষি (Devarshi) অ্যান্ড টিম। ইমন চক্রবর্তী প্রোডাকশনের অন্যতম দুই সদস্য মুন (Moon) এবং গৌরব (Gaurav) সহযোগিতা করেছেন বলে জানিয়েছেন ইমন। তবে ইমন বলেছেন, তিনি নতুনদের নিয়েও কাজ করতে চান। তাঁর ইউটিউব চ্যানেলে নতুন গায়ক-গায়িকাদের লঞ্চ করতে চান ইমন।

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর (Rabindranath Tagore) -এর বিখ্যাত কবিতা ‘নির্ঝরের স্বপ্নভঙ্গ’ সুরারোপ করেছেন ইমন। এটি তাঁর কাছে অত্যন্ত চ্যালেঞ্জিং বিষয় ছিল। অগ্নিভ (Agnibha) -র উৎসাহে এই কাজটি করেছেন ইমন। তবে তাঁকে সাহায্য করেছেন পিন্টু ঘটক (Pintu Ghatak)। রেকর্ড করেছেন গৌতম (Gautam) ও ভিডিওগ্রাফি করেছেন মিলটন (Miltan)।