মুকেশ আম্বানির রাঁধুনির এক বছরের বেতন লজ্জায় ফেলবে সরকারি কর্মচারীদের, দেখুন বিস্তারিত

109

বর্তমান বাজারে চাকরি পাওয়া যেন একটা কঠিন কাজ হয়ে উঠেছে। ভারতবর্ষে (India) দিনে দিনে জনসংখ্যার ব্যাপক বৃদ্ধি জন্যেই সকলের পক্ষে কর্মসংস্থান করা সম্ভব হচ্ছে না। এই কঠিন পরিস্থিতিতে ভারতবর্ষের অন্যতম ধনী মুকেশ আম্বানির (Mukesh Ambani) কর্মচারীদের বেতনের কথা শুনলে চক্ষু চড়কগাছ হবে বৈকি। মাত্র ৮ থেকে ১০,০০০ টাকা পাওয়া মানুষগুলিকে নিমেষেই মুকেশ আম্বানি নিজের কর্মচারী বানিয়ে নিতে পারেন।

সাধারণত ছোটখাটো চাকরি করার থেকে মুকেশ আম্বানির রাঁধুনি হওয়া অনেকেই ভাগ্যের ব্যাপার বলে মনে করে থাকেন। তবে এই পরিবারে রাধুনী হওয়া যেমন তেমন কথা নয় থাকতে হবে যোগ্যতা। মুকেশ আম্বানি তাঁর সমস্ত কর্মচারী সেই গাড়ির ড্রাইভার হোক কিংবা বাড়ির রাধুনী তাঁদেরকে যে হারে বেতন দেন তা সত্যিই আকর্ষণীয়।

আরও পড়ুন:   শুকনো মুড়ি খেয়েই পা বাড়িয়েছেন অলিম্পিকে, এই তরুণী ভারতকে স্বপ্ন দেখিয়েছে সোনা জয়ের স্বপ্ন

মুকেশ আম্বানির যে পরিমাণে বেতন পান তা হয়তো একজন ইঞ্জিনিয়ার ও পান না। এক সার্ভে অনুযায়ী জানা গিয়েছে, মুকেশ আম্বানির বাড়ির রাঁধুনিদের প্রত্যেক মাসের বেতন নাকি প্রায় ২ লক্ষ টাকার সমান। তবে এত বিশাল স্যালারির জন্য আপনি যদি ভেবে থাকেন তার রাঁধুনিদের খুব তাৎপর্যপূর্ণ কোন বিশেষ ধরনের কাজ করতে হয় তা কিন্তু একেবারেই নয়।

আরও পড়ুন:   টানা লড়াইয়ের পর করোনাকে জয় করল ৩৫ দিনের ছোট্ট শিশু, জানুন সেই লড়াইয়ের কাহিনী

মুকেশ আম্বানি একেবারে একজন নিরামিষভোজী মানুষ। তিনি অত্যন্ত সাধারণ এবং ছিমছাম খাবার খেতে পছন্দ করে থাকেন সব সময়ই। তাই কখনোই তাঁর রাধুনীরা তাঁকে এমন কিছু স্পেশাল খাবার করে দেন না। তবে জানা গিয়েছে শুধুমাত্র মুকেশ আম্বানি রাঁধুনিদের স্যালারি দিয়েই ক্ষান্ত হন না। সঙ্গে যোগ করেন সমস্ত রকম বীমা এবং শিক্ষা বীমাও।

আরও পড়ুন:   ভক্তদের সঙ্গে দুর্ব্যবহার, বলিউড থেকে ফের রানাঘাটের রেল স্টেশনে ফিরে এলেন অহংকারী রানু মন্ডল

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, যে কেউ মুকেশ আম্বানির কর্মচারী হওয়ার যোগ্যতা রাখে না। কারণ জানা গিয়েছে, মুকেশ আম্বানির কর্মচারী হওয়ার জন্য বিভিন্ন রকম পদ্ধতির মাধ্যমে যেতে হয়। তাঁর একনিষ্ঠ কর্মচারী হতে গেলে উপযুক্ত মানদণ্ডের মাধ্যমে উর্ত্তীন্ন হলে তবেই হওয়া যায় মুকেশ আম্বানির কর্মচারী।