নিউজরাজ্য

মুম্বইয়ের ধাঁচেই নয়া রেক চলবে শিয়ালদহ ডিভিশনে, এই রেকে থাকবে বিশেষ কিছু সুবিধা

করোনা পরবর্তী অবস্থায় লোকাল ট্রেন চালু করার পর বেশ কিছু পরিবর্তন হতে পারে। এবার লোকাল ট্রেন চলাচল শুরু হলে এমন রেক থাকবে যেই রেক দিয়ে সহজে বাতাস চলাচল করতে পারবে। আর দাঁড়ানোর ও বসার জায়গাও বাড়বে। ইতিমধ্যেই এরম ধরণের রেক শিয়ালদহ ডিভিশনে এসে গিয়েছে। চেন্নাইয়ের ইন্টিগ্রাল কোচ ফ্যাক্টরি ও বম্বার্ডিয়ারের তৈরি করেছে এই রেক। মুম্বাইয়ের লোকাল ট্রেনের মত অনেকটা দেখতে হবে এই রেক।

এই রেকের ট্রায়াল রান আপাতত শিয়ালদহ ডিভিশনের বারাসত কারশেডে চলছে। স্টাফ স্পেশাল হিসাবে শীঘ্রই চালানো হবে। আর তারপর যাত্রী পরিষেবা চালু হলে এই রেক দিয়ে ট্রেন চলতে শুরু করবে। মূলত করোনা পরিস্থিতিতে চিকিৎসকদের কথা মাথায় রেখেই এই ধাঁচের রেক তৈরী করা হয়েছে। এই ট্রেনের ছাদ হচ্ছে আধুনিক। মেট্রোরেলের বাতানুকূল যন্ত্রের ধাঁচে এই কামরায় থাকছে বিশেষ রুফ মাউন্টেড এয়ার প্যানেল।

নতুন রেকে যাত্রীদের বসার জায়গা অনেকটাই চওড়া থাকবে। মুখোমুখি বসার আসনের মধ্যে দুরত্ব থাকবে অনেকটাই। যারা দাঁড়িয়ে যাবেন তাদের জন্যেও যথাযথ ফাঁকা জায়গা থাকবে। ভিড় নিয়ন্ত্রণ করে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা যাবে বলে আশা করছে রেল। ট্রেন জিপিএস নিয়ন্ত্রিতথাকবে। ফলে বিভিন্ন স্টেশন স্বয়ংক্রিয় পদ্ধতিতেই ঘোষণা করা হবে।

রেলের ডিভিশন সূত্রে খবর, বিশেষ রুফ মাউন্টেড এয়ার প্যানেল ঘন্টায় প্রায় ১৬ হাজার ঘন মিটার বাতাস কামরায় ঢুকতে পারবে। এছাড়া এই নয়া রেক স্টেনলেস স্টিলের হওয়ার কারণে অনেক হালকা৷ গতি সর্বাধিক ঘন্টায় ১১০ কিলোমিটার। প্রতি কামরায় থাকছে এল ই ডি আলো। ডিস-প্লে বোর্ড থাকছে। মহিলা কামরায় থাকছে সিসি ক্যামেরা। এই ট্রেন ডিসি মোটরের বদলে এসি থ্রি ফেজে চলবে। রিজেনারেটিং ব্রেকিং সিস্টেম থাকায় এই রেক অনেক বেশি এনার্জি এফিসিয়েন্ট। এই রেক বছর দেড়েক আগে থেকে চলছে মুম্বাইয়ে। এবার শিয়ালদহ ডিভিশনেও চালানো হবে এই রেক।

Related Articles

Back to top button