প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি মুখ্যমন্ত্রীর, চূড়ান্ত বির্তক ঠিক কি নিয়ে?

modi-mamata

নিজস্ব প্রতিবেদন: কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয় গুলিতে ৩০সেপ্টেম্বরের মধ্যে পরীক্ষা নেওয়া বাধ্যতামূলক। সম্প্রতি মানব সম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রকের এমন নির্দেশের পরেই কেন্দ্র-রাজ্য সংঘাতের এক পরিবেশ তৈরি হয়েছে। কেন্দ্রের এই সিদ্ধান্ত রাজ্য মানবে না, এমন ইঙ্গিত দিয়ে আগেই মানব সম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রককে আপত্তি জানিয়ে
চিঠি পাঠিয়েছে রাজ্য।

এবার সেই সিদ্ধান্ত দ্রুত পুনর্বিবেচনার আর্জি জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে চিঠি দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।  ওই চিঠিতে মমতা ব্যানার্জি জানিয়েছেন, পড়ুয়াদের ঝুঁকি ও ভবিষ্যতের কথা মাথায় রেখেই করোনা সংক্রমণের এই পরিবেশে পরীক্ষা না নেওয়াই উচিত।

মমতা ব্যানার্জি প্রতিদিন ইমেল পাচ্ছেন পড়ুয়া এবং শিক্ষা ব্যবস্থায় যুক্তদের থেকে। সকলেই ইউজিসির নতুন গাইডলাইন অনুযায়ী পরীক্ষা নেওয়ার বিপক্ষে। সকলেই চাইছেন পড়ুয়াদের আগের পরীক্ষার ফল বিবেচনা করেই চূড়ান্ত ফল প্রকাশ করা হোক।

কেন্দ্র রাজ্য এই সংঘাত মেটাতে একটি বৈঠক ডাকেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনকড়ও। সংঘাতের আবহে শুক্রবার আচার্যের ডাকা বৈঠকে হাজির হননি রাজ্যের উচ্চ শিক্ষা দফতরের প্রধান সচিব। পাশাপাশি রাজ্যের বিশ্ববিদ্যালয়গুলির উপাচার্যদের সংগঠন সিদ্ধান্ত নিয়েছে, ইউজিসির নির্দেশ নয়, তারা মানবে রাজ্য সরকারের পরামর্শই।

ইতিমধ্যেই রাজ্য সরকার পোষিত বিশ্ববিদ্যালয়গুলির উপাচার্যরাও জানিয়েছেন, তাঁরা ইউজিসির নয়া নির্দেশিকা অনুযায়ী চূড়ান্ত সেমিস্টারের পরীক্ষা নেওয়ার পক্ষপাতি নন।