লাইফ স্টাইল

এইভাবে পটলের ভর্তা বানালে স্বাদ হবে দুর্দান্ত, গরম ভাতের সাথে জাস্ট জমে যাবে

মাত্র এই কটা উপকরণ দিয়ে বানিয়ে ফেলুন অসাধারণ স্বাদের পটলের ভর্তা। যা খেতে লাগবে অপূর্ব।

Advertisements

Advertisements

পটল একটি অত্যন্ত পুষ্টিকর এবং উপাদেয় সবজি। ডালের সাথে পটল ভাজা বাঙালির প্রিয় পদের মধ্যে অন্যতম। তবে পটলের অন্যান্য পদও বাঙালির খুব প্রিয়। পটলের ভর্তা তার মধ্যে অন্যতম। গরম ভাতের সাথে এই সুস্বাদু পদটি দুপুরে কিংবা রাতের খাওয়ার জন্য একেবারে আদর্শ। পটলের একঘেঁয়ে পদ থেকে এই পদটি অনেকটাই আলাদা।

Advertisements

Advertisements

উপকরণ :
১. পটল
২. জল
৩. সর্ষের তেল
৪. শুকনো লঙ্কা
৫. কালোজিরে
৬. রসুন
৭. কাঁচালঙ্কা
৮. পেয়াঁজ
৯. হলুদ গুঁড়ো
১০. লাল লংকার গুঁড়ো
১১. নুন
১২. চিনি

প্রণালী :
এই প্রথমে ৫০০ গ্রাম পটলকে ভাল করে ধুয়ে একটু খোসা ছাড়িয়ে নিতে হবে। যেহেতু পটলের খোসার মধ্যেও খাদ্যগুণ বর্তমান সেইকারণে সমস্ত খোসা ছাড়িয়ে নেওয়া উচিত হবে না। এর পরে পটলগুলিকে ছোট ছোট টুকরো করে কেটে নিতে হবে। একটি কড়াইতে অল্প পরিমাণে জল দিয়ে পটলগুলিকে ভালো করে ভাপিয়ে নিতে হবে। পটল ভাপানো হয়ে গেলে একটি মিক্সিতে ভাপা পটলগুলিকে ভাল করে পেস্ট করে নিতে হবে।

কড়াইতে পরিমাণমতো তেল দিয়ে ভালো করে গরম করতে নিতে হবে। তেল ভালো করে গরম হয়ে গেলে দিয়ে দিতে হবে অল্প পরিমাণে কালোজিরে এবং ৩ থেকে ৪টি শুকনো লঙ্কা। শুকনো লঙ্কা কিছুটা ভাজা ভাজা হয়ে গেলে কয়েকটি লঙ্কা তুলে নিয়ে আলাদা করে রাখতে হবে।

এইবারে তেলের মধ্যে দিয়ে দিতে হবে আগে থেকে থেঁতো করে রাখা ১০ থেকে ১২ টা রসুন। রসুনের স্বাদ তেলের মধ্যে ভালো করে মিশে গেলে এর মধ্যে দিতে হবে ৩টি কাঁচালঙ্কা এবং ২টি মাঝারি আকারের পেয়াঁজ। সবগুলি ভালো করে মিশিয়ে নেওয়ার পরে এর মধ্যে দিয়ে দিতে হবে অল্প পরিমাণে হলুদ গুঁড়ো এবং সামান্য লাল লংকার গুঁড়ো। সমস্ত উপকরণকে ভালো করে মিশিয়ে নেওয়ার পরে পটলের মিশ্রণটিকে দিয়ে দিতে হবে।

এইবারে মাঝারি আঁচে ভালো করে মিশ্রণটিকে মশলার সাথে নাড়া চাড়া করে নিতে হবে। মিশ্রণটি যত ঘন হয়ে আসবে স্বাদও তত ভালো হবে। এই পর্যায়ে স্বাদমতো নুন এবং চিনি দিয়ে দিতে হবে আর এর সাথে দিয়ে দিতে হবে আগে থেকে আলাদা করে রাখা শুকনো লঙ্কা ভাজা।

এইভাবে ভালো করে ৮ থেকে ১০ মিনিট রান্না করে নিলেই সুস্বাদু পটলের ভর্তা পরিবেশনের জন্য তৈরী হয়ে যাবে।

Related Articles