করোনা আবহে শরীরের ইমিউনিটি তৈরি করতে খালি পেটে তুলসীপাতা খেলে পাবেন অনেক উপকার

করোনা আবহে শরীরের ইমিউনিটি তৈরি করতে খালি পেটে তুলসীপাতা খেলে পাবেন অনেক উপকার

আগেকার দিনের মা, ঠাকুমারা জ্বর সর্দি কাশি হলে এই তুলসী পাতার সঙ্গে এক চামচ মধু মিশিয়ে সকাল বেলা খালি পেটে খাইয়ে দিতেন। আর দু-তিন দিনের খেলেই সর্দি কাশি একেবারে গায়েব হয়ে যায়। তবে তুলসী পাতায় শুধুমাত্র সর্দি-কাশি চলে যায় এমন নয়। সকাল বেলা খালি পেটে তিন-চারটি তুলসী পাতা চিবিয়ে খেয়ে নিলে আপনি অনেক রোগ থেকে মুক্তি পাবেন। জেনে নিন তুলসী আপনাকে কি কি রোগের হাত থেকে বাঁচাতে পারে।

১) করোনা ভাইরাস এর আবহে এখন আমাদের প্রত্যেকের শরীরে ইমিউনিটি তৈরি করা ভীষণ প্রয়োজন হয়ে পড়েছে। তুলসী পাতার মধ্যে রয়েছে ভিটামিন এ, ভিটামিন ডি,আয়রন এবং এমন এক ধরনের ফাইবার যা ইমিউনিটি বাড়াতে সাহায্য করে। তাই প্রতিদিন সকালে খালি পেটে তিন-চারটে তুলসী পাতা চিবিয়ে খেয়ে নিন। কোনরকম রোগবালাই আপনাকে ছুঁতে পর্যন্ত পারবে না।

২) চিন্তাভাবনা মানসিক স্ট্রেস কমাতে তুলসী পাতার জুড়ি মেলা ভার। প্রতিদিন সকালে উঠে আপনার চা এর জলের মধ্যে চারপাঁচটা তুলসী পাতা ফেলে সেটিকে ফুটিয়ে পান করুন। দেখবেন সারাদিন মনটা কেমন ফুরফুরে ও তরতাজা থাকবে।

৩) হজম ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে তুলসী। বর্তমানে অনেকেই বদহজম, বুক জ্বালা ইত্যাদি সমস্যায় ভোগেন। প্রতিদিন যদি সকালবেলা ঘুম থেকে উঠে চার-পাঁচটা তুলসী পাতা চিবিয়ে খেতে পারেন তাহলে হজমের সমস্ত সমস্যা দূর হবে।

৪) সুগার কন্ট্রোল করতে তুলসী পাতার জুড়ি মেলা ভার। এখন ঘরে ঘরে খুঁজলে দু’একজন সুগারের রোগীকে আপনি পেয়েই যাবেন। কিন্তু শুধু শুধু ওষুধ খেয়ে শরীর খারাপ করার থেকে বাড়ির ব্যালকনি, উঠোন বা ছাদ থেকে যদি চার-পাঁচটা তুলসী পাতা প্রতিদিন খাওয়া যায় তাহলে সুগার অনেকটাই কন্ট্রোলে থাকে।

৫) সর্দি, কাশি এবং জমা কফ তুলতে ভীষণ উপকারী তুলসী পাতা। প্রতিদিন সকালবেলা চার-পাঁচটা তুলসী পাতা থেঁতো করে মধুর সঙ্গে খেলে আপনি সর্দি-কাশিকে চিরকালের মত টাটা বাই বাই বলতে পারবেন।

৬) মুখে গন্ধ এর হাত থেকে বাঁচতে সাহায্য করে তুলসী পাতা। তুলসী পাতা চিবিয়ে খেলে মুখের মধ্যে কোন রকমের ব্যাকটেরিয়া জমতে পারে না।

৭) ত্বকের যত্নে ব্যবহার করুন তুলসী পাতা। ব্রণ বা ফুসকুড়ির উপরে তুলসী পাতা এবং চন্দনগুঁড়ো লাগালে সেই ব্রণও কমে যায়। এবং ত্বকের যেকোনো দাগ কমাতে প্রতিদিন সকালে তুলসী পাতা খান। এতে শরীরের সমস্ত টক্সিন বেরিয়ে যায়, রক্ত পরিষ্কার হয়। এটি শরীরে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট হিসেবে কাজ করে। যা ত্বককে দাগ মুক্ত রাখতে সাহায্য করে।