এই ৬ টি ঘরোয়া উপায়ে ত্বককে সুন্দর ও আকর্ষণীয় করে তুলুন

আর কদিন পরেই বাঙালির শ্রেষ্ঠ উৎসব দুর্গোৎসব। করোনা আবহে এই উৎসবের আনন্দে খানিকটা ভাঁটা পড়লেও উৎসব প্রিয় বাঙালি দূর্গা পূজার সাজ-গোজ করবে না তা তো আর হয় না। তবে দুর্গাপূজায় প্রত্যেকটা দিন নিজেকে অসম্ভব সুন্দরী করে তুলতে মেনে চলতে হবে এই নিয়ম গুলি।

১) অতিরিক্ত ভাজাভুজি মশলাদার খাওয়া চলবে না, বেশি পরিমাণে জল খেতে হবে। প্রতিদিন একটা করে ফল, প্রচুর শাকসবজি খেতে হবে। সকালে উঠে ১০ মিনিট যোগাভ্যাস করুন।

২) প্রতিদিন ঘুম থেকে উঠে ক্লিনজিং, টোনিং, ময়েশ্চারাইজিং করতে হবে। ক্লিনজিং এর জন্য বেছে নিতে পারেন কাঁচা দুধ। কাঁচা দুধের মধ্যে তুলো ভিজিয়ে গোটা মুখ ভালো করে মুছে নিন। টোনিংয়ের জন্য বেছে নিতে পারেন শসার রস ও গোলাপজল। শসাকে কুরে নিয়ে সেখান থেকে রস বার করে তার মধ্যে কয়েক ফোঁটা গোলাপ জল মিশিয়ে স্প্রে বোতল এর মধ্যে ঢেলে গোটা মুখের মধ্যে লাগিয়ে নিন। ময়েশ্চারাইজার হিসাবে এর জন্য ব্যবহার করতে পারেন এক চামচ দুধের সর, এক চামচ মধু, এক চামচ অ্যালোভেরা জেল ভাল করে মিশিয়ে নিয়ে গোটা মুখে ভালো করে লাগিয়ে বেশ কিছুক্ষণ পরে ঠান্ডা জলে মুখ ধুয়ে ফেলুন। ঠিক এই পদ্ধতিটি রাতে শুতে যাওয়ার আগেও করতে পারেন।

৩) মুখের মধ্যে অতি গুরুত্বপূর্ণ একটি অংশ হল ঠোঁট। দুর্গাপূজার সময় সকাল বিকাল লিপস্টিক ব্যবহার করা এবং বাইরের উল্টোপাল্টা খাবার খাওয়ার ফলে ঠোঁটের ক্ষতি হবে। এটাই স্বাভাবিক। তাই একমাস আগে থেকেই যদি ঠোঁটের একটু যত্ন নেওয়া যায় তাহলে ক্ষতি হলেও সেটা সামলানো খুব সহজ হবে। এক চামচ মধু, এক চামচ চিনি এবং এক চামচ লেবুর রস ভালো করে মিশিয়ে নিয়ে ঠোঁটে লাগিয়ে রাখুন। মাঝে মাঝে ঘষে ম্যাসাজ করুন। এই মিশ্রণটি সাত দিন ফ্রিজেও রাখতে পারবেন। ভালো করে ঘষে নিয়ে ঠাণ্ডা জলে ধুয়ে ফেলে কোন লিপ বাম লাগিয়ে রাখুন।

৪) দুর্গাপূজায় প্রত্যেকটি দিন নিজেকে অপরূপ সুন্দর করতে সপ্তাহে অন্তত দুদিন বডি পলিশিং করুন। তবে এর জন্য অনেক অনেক টাকা খরচ করে পার্লারে যাওয়ার কোন দরকার নেই বাড়িতে থাকা কয়েকটি সাধারণ উপাদান দিয়ে আপনার বডি পলিশিং হয়ে যাবে। একটা লেবুর মধ্যে নুন মাখিয়ে লেবুটি হাত, পিঠ, গলা এবং পায়ে ভালো করে ঘষে ঘষে মাসাজ করুন। বেশ কিছুক্ষণ পরে ঠাণ্ডা জলে ধুয়ে ফেলুন। এবার একটি প্যাক বানাতে হবে তার জন্য লাগবে মুলতানি মাটি, চালের গুঁড়ো, বেসন, একচামচ চিনি, নারকেল তেল, গ্লিসারিন, তিল তেল, এক চামচ কমলালেবুর খোসা গুঁড়ো, এক চামচ গোলাপ ফুল গুঁড়ো এই প্রত্যেকটি মিশ্রন ভাল করে মিশিয়ে নিয়ে সারা গায়ে মেখে নিন। প্রায় এক ঘন্টার মতন মিশ্রণটি গায়ে লাগিয়ে রাখতে হবে। স্নানের আগে এটি করলে ভালো উপকার পাওয়া যায়। তারপরে সামান্য উষ্ণ গরম জলে স্নান করে ফেলুন। সপ্তাহে দুদিন এটি করতে পারলে আপনি ঝকঝকে একটি ত্বকের অধিকারী হতে পারবেন।

৫) দুর্গা পুজোর সাজ একেবারেই পরিপূর্ণ হয় না চুল ছাড়া। তাই চুলের যত্ন নেওয়া ভীষণ প্রয়োজন। সপ্তাহে অন্তত ৩ দিন রাতে শুতে যাওয়ার আগেই চুলের গোড়ায় গোড়ায় অয়েল ম্যাসাজ করতে হবে। নারকেল তেল, একটি ভিটামিন ই ক্যাপসুল দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে চুলের গোড়ায় গোড়ায় লাগিয়ে রাখুন। সকাল বেলা যেকোনো হার্বাল শ্যাম্পু দিয়ে শ্যাম্পু করে ফেলুন। সপ্তাহে একদিন চুলে দিন প্রোটিন প্যাক দিন। এটি বানাতে প্রয়োজন টকদই, একটি ডিম, লেবুর রস ভালো করে মিশিয়ে নিয়ে গোটা চুলে লাগিয়ে নিন। বেশ কিছুক্ষণ রেখে শ্যাম্পু করে ফেলুন।

৬) দুর্গাপূজার সময় হাত ও পায়ে নেলপলিশ পড়তেই হবে কিন্তু তার জন্য প্রয়োজন হাত পায়ের নখের যত্ন নেওয়া। রাতে শুতে যাওয়ার আগে এক চামচ লেবুর রস এবং এক চামচ গ্লিসারিন ও একটি ভিটামিন-ই ক্যাপসুল ভাল করে মিশিয়ে নিয়ে নখের মধ্যে ম্যাসাজ করুন। এটি শুধুমাত্র নখে নয় হাতের এবং পায়ের পাতাতে ও করতে পারেন। অনেক সময় জুতো পরতে পরতে পায়ের পাতায় বিশ্রী কালো দাগ দূর হয়ে যায়। এটি মালিশ করলে সমস্ত কালো দাগ চলে যাবে। হাত ও পায়ের চামড়া নরম, তুলতুলে হয়ে উঠবে।