নতুন করে আরও ৬টি রাজ্যের জন্য 50 হাজার কোটি টাকার মেগা প্রকল্পের উদ্বোধন মোদীর

চতুর্থ লকডাউন শুরু হয়েছে 1 জুন থেকে এবং আনলক ওয়ান শুরু হয়েছিল সেদিন থেকেই। তবে সারাদেশে এই লকডাউনের ফলস্বরূপ, অনেক লোক তাদের চাকরি হারিয়েছে এবং এই মুহুর্তে দেশের বিভিন্ন স্থানে কর্মরত প্রবাসী শ্রমিকরা তাদের বাড়িতে ফিরে এসেছেন, সুতরাং তারা যে কাজটিও চালাচ্ছেন, তা বন্ধ হয়ে গেছে। তবে এবার সেই সব মানুষদের কথা মাথায় রেখে প্রধানমন্ত্রীর নরেন্দ্র মোদী আজ শনিবার দিন সেই সব পরিযায়ী শ্রমিকদের রোজগারের জন্য 50 হাজার কোটি টাকার মেগা প্রকল্প লঞ্চ করতে চলেছেন।

এই প্রকল্পটির নামকরণ হয়েছে গরিব কল্যাণ রোজগার অভিযান। প্রকল্পটি করোনা ভাইরাসজনিত কারণে দেশে ফিরে আসা পরিযায়ী কর্মীদের লক্ষ্য করবে। তাদের জন্য কর্মসংস্থান তৈরি করা হবে যাতে তারা সরকারি প্রকল্পগুলিতে গ্যারান্টিযুক্ত কাজের সুযোগ পায়। শুধু তাই নয়, আজ বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমার এবং উপ-মুখ্যমন্ত্রী সুশীল মোদীর উপস্থিতিতে প্রধানমন্ত্রী এই মেগা সরকারি প্রকল্পের উদ্বোধন করতে যাচ্ছেন।

তবে শুধু তাই নয়, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর ভিডিও কনফারেন্সিংয়ে আরও পাঁচটি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী এবং সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রীরা অংশ নেবেন। বিহারের খাগরিয়া জেলার তেলিহার গ্রামেও প্রকল্পটির উদ্বোধন করা হবে। এই কেন্দ্রীয় গরিব করলেন রোজগার অভিযানটি কী?আপনাদের সুবিধার্তে বলে রাখি এই অভিযানের দরুন 125 দিন ধরে 6 টি রাজ্যের 116 টি জেলার পরিযায়ী সাহায্য করা হবে তাদের কাজের বন্দোবস্ত করা হবে তাদের স্কিল অনুযায়ী। উত্তর প্রদেশ, মধ্য প্রদেশ, রাজস্থান, ঝাড়খণ্ড, ওড়িশা, বিহার এই ছয় রাজ্যের 116 টি জেলা এই প্রকল্পের আওতায় থাকছে।

সুতরাং, লকডাউন চলাকালীন, সর্বাধিক সংখ্যক পরিযায়ী শ্রমিক রাজ্যগুলিতে ফিরে আসেন, সুতরাং রাজ্যগুলির নাম এই প্রকল্পের আওতায় রাখা হয়েছে। এবং এই দরিদ্র কল্যাণ উপার্জন অভিযানের মধ্যে দেশের গ্রামীণ অঞ্চলের উন্নয়নের জন্য 25 টি ধরণের কাজ অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। অর্থাৎ কেন্দ্রের তরফ থেকে গ্রামীন ভারতের পরিকাঠামোর উন্নয়ন ঘটানোর জন্য পঞ্চাশ হাজার কোটি টাকা খরচ করা হবে।