নিউজআন্তর্জাতিকপ্রযুক্তি

দেশের গর্ব দশের গর্ব, বাঙালি যুবকের হাত ধরে মঙ্গলগ্ৰহে নতুন ইতিহাস রচনা করবে নাসা

লাল গ্রহ মঙ্গলের বুকে এবার অবতরণ করবেন মহাকাশযান রোভার। রোভার এর যাত্রা এবার শুরু হবে বর্ধমানের ছেলে সৌম্য দত্তের হাত ধরে। 15 জন মানুষ ধরে দাঁড়ালে যে উচ্চতা হয় সেই উচ্চতাবিশিষ্ট দৈত্যাকার এক প্যারাসুট নির্মাণ করেছে এই সৌম্য দত্ত।

৯ বছর আগে মঙ্গল গ্রহ অভিযানের জন্য যে প্যারাসুটে ব্যবহার করা হয়েছিল সেই প্যারাসুট এখনকার প্যারাসুটের কাছে প্রযুক্তিগত দিক থেকে ব্যাকডেটেড। এই দৈত্যাকার প্যারাসুট ছাড়া মার্স ২০২০ রোভার’ কে সঠিকভাবে মঙ্গল গ্রহে অবতরণ করানো সম্ভব হতো না।

প্রযুক্তিগত দিক থেকেও আগের প্যারাসুটের সাথে এখনকার প্যারাসুটে পার্থক্য আছে। এই প্যারাসুট টি মঙ্গল গ্রহের কক্ষপথ কে প্রদক্ষিণ না করে সরাসরি মঙ্গল গ্রহের বুকে পৌঁছাবে।

এই প্যারাসুট থেকে যখন ল্যান্ডার ও রোভার আলাদা হয়ে যাবে তখন তার গতি থাকবে সাড়ে 5 কিলোমিটার প্রতি সেকেন্ডে। গতি কমালে মারাত্মক ধরনের দুর্ঘটনার সম্মুখীন হতে পারে এই প্যারাসুটটি। তাই মঙ্গল গ্রহে যাতে সুন্দরভাবে এইবারের অভিযান ঘটানো যায় সেই লক্ষ্যেই এই বড় ধরনের প্যারাসুট থেকে নির্মাণ করা হয়েছে।

মঙ্গল গ্রহের বায়ুমণ্ডলের সংস্পর্শে এসে এই রকেটটি যাতে পুড়ে না যায় সেইজন্য এই রকেটের ভিতরে বিশেষ ধরনের এক তাপরোধী ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। 21 মিটারের থেকে বড় উচ্চতা বিশিষ্ট এই প্যারাসুটটিকে খুলতে সময় লাগবে এক থেকে দুই সেকেন্ড। প্যারাসুটটিকে খোলার সাথে সাথেই রোভারের ক্যামেরা উপযুক্ত স্থান খুঁজতে শুরু করবে।

Related Articles

Back to top button