নিউজ

রাষ্ট্রপতি দ্রৌপদী মুর্মু পরেন বিশেষ ধরনের সিল্ক শাড়ি, এরই মধ্যে লুকিয়ে আছে গোটা ইতিহাস

Advertisements

Advertisements

দ্রৌপদী মুর্মু দেশের ১৫তম রাষ্ট্রপতি হিসেবে শপথ নিয়েছেন। আজ সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি এনভি রমণ তাঁকে শপথবাক্য পাঠ করান। দ্রৌপদী মুর্মু দেশের দ্বিতীয় মহিলা রাষ্ট্রপতি যিনি এই সর্বোচ্চ সাংবিধানিক পদে অধিষ্ঠিত হলেন। দ্রৌপদীই স্বাধীন ভারতে জন্ম নেওয়া প্রথম আদিবাসী উপজাতির রাষ্ট্রপতি।

শপথ গ্রহণের সময় ভারতের ১৫তম রাষ্ট্রপতি দ্রৌপদী মুর্মু একটি সাঁওতালি শাড়ি পরেছিলেন। এদিন তাঁর পরনের শাড়িটি ছিল সাদামাটা দেখতে এক সবুজ-লাল পাড়ের সাদা রঙের একটি শাড়ি। এই ধরনের শাড়িকে সাঁওতালি শাড়ি বলে। এই সাঁওতালি শাড়ি রাষ্ট্রপতি দ্রৌপদী মুর্মুর ঐতিহ্যের সঙ্গে জড়িত। এই সাঁওতালি শাড়ি তাঁতে বোনা হয়। অর্থাৎ এই শাড়ি মেশিনে তৈরি হয় না। তাঁতিরা রঙিন সুতো দিয়ে এই ধরণের শাড়ি তৈরি করেন। বর্তমানে আধুনিক ফ্যাশনের প্রতীক হিসাবেও এই শাড়ি ভারতীয় বাজারে জনপ্রিয়। শাড়িগুলির দামও বেশি নয়। মাত্র হাজার টাকা থেকেই এর রেঞ্জ শুরু হয়।

এই শাড়ি পূর্ব ভারতের সুকরি টুডু সাঁওতাল সম্প্রদায়ের মধ্যে প্রচলিত। এই সাঁওতালি শাড়ির এক প্রান্তে কিছু ডোরাকাটা কাজ থাকে। কিছু বিশেষ অনুষ্ঠানে সাঁওতালি মহিলারা এই শাড়ি পরেন। এই সাঁওতালি শাড়ির বিশেষত্ব হল লম্বা স্ট্রাইপ এবং উভয় প্রান্তে একই নকশা।

আগে যখন সাঁওতালি শাড়ি তৈরি হত, সে সময় এসব শাড়ির ওপর থ্রি-বো ডিজাইন করা হত। এই প্রতীকের অর্থ নারীদের স্বাধীনতার আকাঙ্ক্ষা। তবে নতুন যুগের সাথে তাল মিলিয়ে আজকাল সাঁওতালি শাড়িতে ময়ূর, ফুল ও হাঁসের নকশা করা হচ্ছে। ঐতিহ্যগত ও আধুনিক ফ্যাশনের সংমিশ্রণ এখন সাঁওতালি শাড়িতে দেখা যায়। বর্তমানে বাজারে এইসব শাড়ির চাহিদা বাড়ছে। আগে এই শাড়িটি ঝাড়খণ্ডের সাঁওতাল পরগনা এলাকায় সীমাবদ্ধ ছিল। বর্তমানে এই শাড়ি অন্যান্য রাজ্যেও খুবই জনপ্রিয় হয়েছে।

Advertisements

Related Articles