স্বামীর ঘরে হয়নি জায়গা! দুর্দান্ত অভিনয়ের পরেও পাবলিসিটির অভাবেই যোগ্য সম্মান পাননি অভিনেত্রী গীতা দে

215

ছবিতে ভালো চরিত্রের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করা বা খলনায়িকাকে কু বুদ্ধি দেওয়া সব ক্ষেত্রেই সিদ্ধহস্ত অভিনেত্রী গীতা দে। কিন্তু জানেন কি তার মনটা ছিল একটা ফুলের মত নরম। ছিলেন একজন নামী চিকিৎসকের মেয়ে। অথচ সারাজীবন বঞ্চিত ছিলেন বাবার ভালোবাসা থেকে। স্বামীর ঘরে গেলেও পাননি যোগ্য সম্মান। তার মমতা ভরা স্বভাবের জন্যে তাকে মা বলে ডাকা হতো ইন্ডাস্ট্রিতে। অনেক ছোট বেলায় তার বাবা মায়ের বিচ্ছেদ হয়। এরপর মায়ের সঙ্গেই থাকতে শুরু করেন গীতা। তার আগেই প্রতিবেশী সু গায়িকা রাধারাণী দেবীর দৌলতে মাত্র পাঁচ বছর বয়সে অভিনয় জীবন শুরু করেন।

আরও পড়ুন:   দুর্দান্ত লুকে নেটিজেনদের মন জয় করলেন জনপ্রিয় অভিনেত্রী মধুমিতা, তুমুল ভাইরাল ভিডিও

আর্থিক অসচ্ছলতার কারণে ভর্তি হতে পারেননি ভালো স্কুলে। বেশিদূর লেখা পড়াও করেননি তিনি। তার মা রেনুবালা দেবী বিয়ে করেছিলেন অজিত কুমার ঘোষ নামের এক ব্যবসায়ীকে কিন্তু নতুন বাবা মেয়েকে একপ্রকার মেনে নিতে পারেননি। তাই মাত্র ৬ বছর বয়সে সিনেমায় নামতে হয় তাকে।

আরও পড়ুন:   ফের ক্যান্সারে আক্রান্ত অভিনেত্রী ঐন্দ্রিলা, পাশে দাঁড়িয়ে ভরসা দিলেন বিশেষ বন্ধু পর্দার ‘বামাক্ষ্যাপা’

“কালিন্দী”নাটকে গান গেয়ে বেতন পেয়েছিলেন ৫ টাকা। এরপর “দুই পুরুষ”নাটকে অভিনয় করেছিলেন শিশুশিল্পী হিসেবে। মাত্র ১৪ বছর বয়সে মা মারা যান। এরপর শিশির ভাদুরির সঙ্গে পরিচয়ের সুবাদে কাজ করতে শুরু করেন তাও আবার বিনা পরিশ্রমিকে। বিয়ে হয়েছিল অসীম দে’র সঙ্গে কিন্তু সেই বিয়ে টেকেনি শাশুড়ির অত্যাচারে। কিন্তু আজীবন স্বামীর মঙ্গল কামনায় সারাজীবন সিঁদুর পড়েছেন।

আরও পড়ুন:   গোয়ায় হানিমুন, তৃণার প্রেমে পড়ে জল খেয়েই নেশা নীলের!

মৌচাক, সাথীহারা,পিতা পুত্র, হাট বাজারে,মেঘে ঢাকা তারা, বসন্ত বিলাপ,পুত্রবধূ প্রভৃতি ছবিতে দাপটের সঙ্গে অভিনয় করেছেন গীতা দে। তার অভিনয় দেখে এক ব্রিটিশ পরিচালক বলেছিলেন,আমাদের দেশে থাকলে গীতা দেবী নিশ্চিত অস্কার পেতেন।