স্বামীকে খুশি করতে রোজ রাতে এই কাজটি করেন রানী মুখার্জি, নিজেই জানালেন সে’কথা

রানী মুখার্জি বলিউডের একজন নামী অভিনেত্রী। তিনি এখন অব্দি তার অনুরাগীদের অনেক হিট ছবি উপহার দিয়েছেন। তিনি জনপ্রিয়তার শীর্ষে উঠে যান ‘হিচকি’ ছবির সাফল্যতায়।

অভিনেত্রীদের সাজগোজ হলো তাদের একটি আবশ্যক বিষয়। তাদেরকে সব সময় সাজগোজ করে নিজেকে ফিটফাট করে রাখতে হয় কাজের সুবাদে। তবে সবার মত রানী মুখার্জির জীবন নয়।

তিনি এক সাক্ষাতকারে বলেছেন, অন্যান্য অভিনেত্রীদের থেকে সম্পূর্ণ আলাদা তার জীবন। তাকে তার স্বামীর জন্য প্রচুর পরিমাণে সাজগোজ করতে হয় অভিনয়ের তুলনায়। তিনি আর পাঁচজন সাধারণ মহিলার মতো বাড়িতে বিনা মেকআপে থাকতে পছন্দ করেন।

সেই সাক্ষাৎকারে তিনি বলেছেন তিনি তার স্বামীকে নিয়ে বেশি চাপে থাকেন কাজের তুলনায়। তার স্বামীর নাম আদিত্য চোপড়া। রানী মুখার্জির কথা শুনলে স্পষ্ট বোঝা যায় যে তিনি খুব সহজ লোক নন। রানী মুখার্জি স্বামী ক্যামেরার সামনে আসতে একদম রাজি নন, রানী মুখার্জির সমস্ত ক্যামেরার সামনে হওয়ার পরেও।

তার খুবই আপত্তি ক্যামেরার সামনে আসা নিয়ে। আদিত্য চোপড়া নিজের পাশাপাশি তিনি তাঁর মেয়ে আদিরা ক্যামেরার সামনে আসুক তা তিনি একেবারেই পছন্দ করেন না। রানী মুখার্জি একজন ভালো অভিনেত্রী এবং স্ত্রী।

তাঁকে অনেক কিছু করে চলতে হয় তার স্বামীকে খুশি রাখতে। তার স্বামীর চোখে স্ত্রীকে সুন্দরী দেখাটা খুবই জরুরী বিয়ের পরে।

তিনি বলেছেন, তাঁর জীবনে অভিনয়ের থেকে স্ত্রী এর দাম বেশি। তার মতে, সংসার কখনো সুখী হতে পারেনা যদি আপনার স্বামী রাতে বাড়ি ফিরে একটা হাসিখুশি মুখ আর একটা সুন্দর বাতাবরণ দেখতে না পান। তিনি বলেছেন সংসার কখনো সুখের হতে পারেনা যদি বাড়ির পরিবেশ সুস্থ্ স্বাভাবিক ভাবে না থাকে।

স্বামীর ক্লান্তি দূর হয় না যদি তিনি রাতে এসে দেখেন তার স্ত্রী অগোছালো এবং বাড়ির পরিবেশ খুবই খারাপ। তুমি কোন ক্লান্তি দূর করতে স্ত্রীকেই বাড়ির পরিবেশ ঠিক রাখতে হয় এবং নিজেকে সুন্দর করে সাজিয়ে তুলতে হয়।

তাই রানী মুখার্জি প্রত্যেকদিন রাতে মেকআপ করেন তার স্বামীর মন জয় করতে। যাতে তাকে খুবই সুন্দরী লাগে তার স্বামীর চোখে। শুধুই যে তিনি মেকআপ করেন তা নয় তার সাথে ভালো ভালো পোশাক পরেন যাতে তার সৌন্দর্য আরো বৃদ্ধি পায়। এরপর তিনি তার নিজের ঘরটি খুব সুন্দর করে সাজিয়ে তোলেন স্বামীর জন্য।