বাদশাহর ছেলে হয়েও রেহাই নেই! শেষ পর্যন্ত জেলেই ঠাঁই হল শাহরুখ পুত্র আরিয়ানের

60

এখনই রেহাই পাচ্ছেন না শাহরুখ-পুত্র আরিয়ান খান। বলিউড কিং পুত্রের অন্তর্বর্তী জামিনের আবেদন মঞ্জুর করলোনা আদালত। বৃহস্পতিবার আরিয়ানকে 14 দিনের জেল হেফাজতের নির্দেশ দিল আদালত। এই রায় ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গেই আরিয়ানের আইনজীবী আরিয়ানের পরবর্তী জামিনের আবেদন করেন। কিন্তু আপাতত জেল হেফাজতেই থাকতে হবে বলিউড বাদশা পুত্রের। আরিয়ানের আরো দুই সঙ্গী আরবাজ শেঠ মার্চেন্ট এবং মুনমুন ধমেচার জামিনের আর্জিও মঞ্জুর করেনি আদালত।

আরও পড়ুন:   চা বাগানে ফুরফুরে মেজাজে ‘রানীমা’, ভাইরাল দিতিপ্রিয়ায় দার্জিলিং ডায়েরি

আরিয়ানের মোবাইল থেকে পাওয়া বেশ কিছু চ্যাট পেয়েছে এনসিবি। সেই হোয়াটসঅ্যাপ কথোপকথনের জেরেই আরিয়ানকে মাদকাসক্ত বলে দাবি করা হচ্ছে। তবে আরিয়ানের আইনজীবী সতীশ মানশিণ্ডে সেই চ্যাটকে কেবলই সাদামাটা ফুটবল নিয়ে কথোপকথন বলে দাবি করেছেন। কিন্তু সরকারি আইনজীবী অনিল সিংহ মনে করছেন ফুটবল নয় বরং সাংকেতিক ভাষায় কোন মাদকচক্রের সাথে কথোপকথন চালাতেন শাহরুখপুত্র। আর সেই বিষয়টিকে খতিয়ে দেখার জন্যই নারকোটিক্স কন্ট্রোল ব্যুরো আরিয়ানকে নিজেদের হেফাজতে রাখতে চেয়েছে।

আরও পড়ুন:   সঞ্চালনার মাধ্যমে টেলিভিশন জগতে আসা, জেনে নিন 'মিঠাই'-এর নিপার আসল পরিচয়

এই বিষয়ে দাবি রাখা হয়েছে, আরিয়ানকে জামিন দিলে তথ্য-প্রমাণ নয় ছয় এবং তদন্ত প্রক্রিয়ায় ব্যাঘাত ঘটতে পারে। শুক্রবার আদালতে এই যুক্তি দেখিয়েছে সরকারি আইনজীবী অনিল সিংহ। অন্যদিকে আরিয়ানের আইনজীবী সতীশ মানশিণ্ডে বলেন, আরিয়ানের প্রভাবশালী পরিবার মানেই তারা তথ্যপ্রমাণ লোপাট করার চেষ্টা করবে সেটা ভাবা ভুল।

আপাতত আরিয়ানকে অন্যান্য অভিযুক্তদের সাথে তিন থেকে পাঁচ দিন আর্থার জেলে বাস করতে হবে। এদিন আদালতে আরিয়ানের আইনজীবী সতীশ মানশিণ্ডে এবং সরকারি আইনজীবী অনিল সিংহর মধ্যে যুক্তি-পাল্টা যুক্তি লড়াই চলতে থাকে। এক সময় এই দুই আইনজীবীর তর্ক বিতর্ক বাকবিতণ্ডার আকার নেয়। যদিও শেষ পর্যন্ত হাসি হেসেছিল সরকারি আইনজীবী অনিল সিংহ। কারণ আপাতত কিছুদিনের জন্য জেলই ঠিকানা হতে চলেছে শাহরুখ পুত্রের।