রাজ্যগুলিকে প্রয়োজনে কার্ফু জারির নির্দেশ কেন্দ্রের

ভারতের মাটিতে নিজের আধিপত্য বিস্তার করেই চলেছে নোভেল করোনা ভাইরাস। বাড়ছে আক্রান্ত, মৃত্যুর সংখ্যা। আক্রান্তের সংখ্যা যত বাড়তে শুরু করছে ততোই সতর্ক হচ্ছে প্রশাসন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পারলে অবস্থা আরও খারাপ হতে পারে, এমনটাই আশঙ্কা করা হচ্ছে। তাই চেষ্টায় কোনো খামতি রাখতে চাইছে না কেন্দ্র।সংক্রমণ রুখতে দেশের একটা বড় অংশ লকডাউন।

তা সত্ত্বেও আইন ভেঙে মানুষজন বাইরে বেরচ্ছেন, নিজেদের সুরক্ষার ভাবনা উড়িয়ে। এই মুহূর্তে ভারতে মৃতের সংখ্যা ১২। আক্রান্ত পাঁচশো পেরিয়েছে। এ রাজ্যে নতুন করে দু’জনের শরীরে COVID-19 জীবাণু পাওয়ায়, আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে নয়।

[আরও পড়ুনঃ ধেয়ে আসছে ভয়ঙ্কর এক গ্রহাণু, ২৯ এপ্রিল থাকবে পৃথিবীর কাছাকাছি]

যার মধ্যে সোমবার বিকেলে একজনের মৃত্যু হয়েছে। ২৩টি রাজ্য ও ৭ কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে লকডাউনকে হাতিয়ার করে করোনার স্টেজ – থ্রি বা তৃতীয় পর্যায়ের সংক্রমণ আটকাতে মরিয়া দেশবাসী।

কিন্তু জনসচেতনতা কতটা কাজ করছে, তা এক বড় প্রশ্ন। কিন্তু লকডাউন জারি হওয়া সত্ত্বেও অনেকেই সাবধানতা অবলম্বন করছে না। এই বিষয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন খোদ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির। তাই এবার আরও কড়া ব্যবস্থা নেওয়ার কথা ভাবছে কেন্দ্র। সূত্রের খবর কেন্দ্রের তরফে রাজ্যগুলিকে নির্দেশ দেওয়া হচ্ছে, যাতে প্রয়োজন পড়লে কার্ফু জারি করা হয়। ব্লক টাউন যদি মানতে কেউ না চায়, সে ক্ষেত্রে ১৪৪ ধারা জারি করার কথা বলা হচ্ছে।