অফবিট

ডাস্টবিন থেকে কুড়িয়ে পাওয়া মেয়েটি তার সবজি বিক্রেতা বাবার জন্য এত বড় প্রতিদান দিল

জীবনে কি না ঘটে কার জীবনে কখন কি হবে পরিবর্তন হবে কোন কিছুই বলা যায় না। জীবন যতই কঠোর হোক সৎভাবে জীবনের সাথে যে লড়ে যায় সে তার ফল কোন না কোন সময় ঠিক পাবেই। আমরা জীবনে চলার পথে অনেক মহৎ কাজের কথা এবং অনেক মহান পুরুষের কথা শুনেছি অনেক বিখ্যাত পুরুষের বাণীও শুনেছি অনেক মানুষকে ছোটখাটো জায়গা থেকে বিখ্যাত হতেও দেখেছি কিন্তু একজন প্রতিষ্ঠিত মানুষের পিছনে যে দাঁড়িয়ে থাকে কঠোরভাবে অর্থাৎ একজন সফল মানুষের সফলতার পেছনে যার অবদান থাকে অতুলনীয় তার কথা খুব কম শোনা যায়।

আজ আমাদের এই প্রতিবেদনে এ রকমই একটি মানুষের ঘটনা তুলে ধরা হল আপনার সামনে যে তার দারিদ্র্য জীবনের সাথে লড়াই করে একটি আবর্জনার স্তুপ থেকে কুড়িয়ে পাওয়া মেয়েকে আইপিএস অফিসার এ রূপান্তরিত করতে সক্ষম হয়েছে।

ঘটনাটি ঘটেছে আসামে। আসামের বাসিন্দা নিখিল একজন সবজি বিক্রেতা। দিন আনা দিন খাওয়া মানুষ এই নিখিল সকালবেলা সবজি বিক্রি করে যে অর্থ উপার্জন করে সেই দিয়েই তার ছোট্ট সংসার টিকে চালায়। নিখিল অবিবাহিত। কঠোর দারিদ্রতার সাথে কিভাবে লড়াই চালাতে হয় সেটি নিখিলকে না দেখলে বোঝা যাবে না। কিন্তু তার এই জীবনে এমন একটি মোর আসবে যেখান থেকে তার জীবন টি সম্পূর্ণ পরিবর্তন হতে চলেছে সেটি কেউ জানত না। এমনই একদিন সকালে সবজি বিক্রি করতে বেরিয়ে নিখিল একটি আবর্জনার স্তূপে কোন একটি জিনিসকে নড়াচড়া করতে দেখে এবং সেখান থেকে তার কানে ভেসে আসে কান্নার শব্দ। নিখিল তৎক্ষণাৎ সেখানে গিয়ে দেখতে পায় আবর্জনার স্তূপে একটি কন্যা শিশু পড়ে আছে। মানুষ কতটা নিষ্ঠুর হতে পারে তাই না!

একটি দুধের শিশুকে এভাবে আবর্জনার স্তূপে ফেলে চলে যায় কিভাবে! কিন্তু সেই বাচ্চা শিশুর ভাগ্য নিখিলের ভাগ্য সাথে কিভাবে জড়াবে কেউ জানেনি। নিখিল তৎক্ষণাৎ সেই বাচ্চা শিশুটিকে আবর্জনার স্তুপ থেকে উদ্ধার করে বাড়িতে নিয়ে আসে। নিখিল অবিবাহিত তাই এই বাচ্চা মেয়েটিকে তার নিজের মেয়ের মতন করে মানুষ করতে থাকে। মেয়েটির নাম রাখে মিথিলা।

নিখিল জানে যে তার জীবন কতোটা দারিদ্রতা পূর্ণ তাই তার মেয়ে যাতে একটি ভালো জীবন পায় তার জন্য কঠোর পরিশ্রম করে মেয়েকে মানুষের মতো মানুষ করতে থাকে। শত দারিদ্রতার মধ্যেও মমিথিলাকে ভাল শিক্ষা দিতে সক্ষম হয় নিখিল। অবশেষে গর্বের কথা তখনই আসে যখন মানুষ শোনে যে মেয়েটিকে একদিন নিখিল আবর্জনার স্তুপ থেকে উদ্ধার করে নিয়েছিল সেই মমিথিলা আজ আইপিএস অফিসার। এবং মেয়েটিও অস্বীকার করেনি তার পেছনে তার বাবার অবদান। তাই নিখিলকে দেখে একটি কথাই মনে হয় যতোই কঠোর সময় আসুক যতই দারিদ্রতা সুখ সদ্ভাবে লড়ে যাওয়াই জীবন।

Related Articles

Back to top button