চিকিৎসার অভাবে মৃত্যু করোনা আক্রান্ত তরুনের

corona-doctors

নিজস্ব প্রতিবেদন: মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি জানিয়েছেন কোনো রোগীকে হাসপাতাল ফেরাতে পারে না। তবে কথা কথাতেই রয়ে গেল। যদি মুখের কথা বাস্তবে প্রয়োগ করা যেতে পারত তাহলে হয়তো এই ভাবে তরতাজা এক প্রান ঝড়ে পড়ত না।

একাধিক হাসপাতালে ভর্তি হতে পারল না তরুন, শেষ মেশ মৃত্যু। একের পর এক হাসপাতাল থেকে ফেরানোর অভিযোগ। দিনভর হয়রানির পর মৃত্যু ইছাপুরের তরুণের।  জানা যাচ্ছে, কামারহাটি ইএসআই এবং সাগরদত্ত হাসপাতাল থেকেও ফেরানোর অভিযোগ।

এমনকি ভর্তি নেয় নি নার্সিংহোম। শেষে লালবাজারের হস্তক্ষেপে কলকাতা মেডিক্যালে স্থানান্তর করা হলেও, দীর্ঘক্ষণ বিনা চিকিৎসায় ফেলে রাখার অভিযোগ। আর এরপর শেষ পরিনতিতে শুক্রবার দিনভর হয়রানির পর রাতেই মৃত্যু হয় তরুণের।

সূত্রে খবর, আচমকাই অসুস্থ হয়ে পড়ে তরুণ।শ্বাসকষ্ট হতে শুরু হতেই প্রথমে তাঁকে কামারহাটির ইএসআই হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। তবে সেই সময় তরুণের রক্তে শর্করার মাত্রা অত্যন্ত বেশি ছিল। তাই সেখানে চিকিৎসা হবে না বলে জানিয়ে দেওয়া হয়।

সেখান থেকে একটি বেসরকারি হাসপাতালে যান তাঁরা। তবে সেখানেও চিকিৎসার জন্য দীর্ঘক্ষণ দাঁড় করিয়ে রাখা হয়। এরপর পুলিশের সহযোগিতায় নার্সিংহোমে ওই তরুণের করোনা পরীক্ষা করানো হয়। রিপোর্ট পজিটিভ জানতেই, বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি নিতে অস্বীকার করে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

এরপরেই বুদ্ধি করে লালবাজারে যোগাযোগ করেন তাঁরা। পুলিশের সহযোগিতায় কলকাতা মেডিক্যাল কলেজে তরুণকে নিয়ে আসা হয়। তবে সেখানেও জানিয়ে দেওয়া হয় বেড নেই। এর পরেই শুরু হয় বচসা, সন্তানের চিকিৎসা না হলে আত্মহত্যার হুমকি দেন তরুণের মা।  তারপরেও হয়নি চিকিৎসা। রাতেই মৃত্যু হয় ওই তরুণের।