মদের আসরে চাট নিয়ে না আসায় বন্ধুকে খুন করল যুবক

করোনার সংক্রমণের বৃদ্ধির মাঝে, লকডাউনের তৃতীয় পর্বের শুরুতে মদের দোকান খোলা হয়। এ সময় অনেক মনোরোগ বিশেষজ্ঞরা আশঙ্কা করেছিলেন যে এর ফলে সহিংসতা বাড়বে। সময়ের সাথে সাথে দেশের বিভিন্ন জায়গায় সংঘটিত বিভিন্ন ঘটনা দেখে মনে হয় তাদের ভয় সত্য হয়ে গেছে। এছাড়াও শনিবার মদ নিয়ে একটি যুবক ঝগড়ার কারণে তার বন্ধুকে হত্যা করেছিল। ঘটনাটি তামিলনাড়ুর চেঙ্গালপট্টু জেলার গুডুভানচারি শহরে। তদন্ত শুরু হলেও পুলিশ এখনও অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, তামিলনাড়ু সরকার একটি মদের দোকান খোলার পরে ৪৩ বছর বয়সী বিনায়াগম এবং তার ৩৮ বছর বয়সী বন্ধু বাসু পার্টির সিদ্ধান্ত নেন। দুজনের মধ্যে একটি চুক্তি হয়েছিল, বিনায়াগাম মদের জন্য অর্থ দিবেন এবং বসু তার সাথে চাট হিসাবে খেতে হাঁসের মাংস কিনবে।

প্রতিশ্রুতি অনুসারে শনিবার সন্ধ্যায় বিনায়াগাম দারগাস এলাকার একটি তেঁতুলের খামারে এক বোতল ওয়াইন এবং দুই বন্ধু নিয়ে পৌঁছোন। বিনায়গাম ওয়াইন পার্টি করার সময় হাঁসের মাংস সন্ধান করে। এসময় বসু বলে, সে মদ্যপানের জন্য হাঁসের মাংসের বদলে অন্য খাবার নিয়ে এসেছে।

এর পরে দুই বন্ধুর মধ্যে উত্তপ্ত তর্ক শুরু হয়। মারামারি শুরু হয়। এসময় বাসু হঠাৎ একটি ধারালো ছুরি দিয়ে বিনায়গমকে আক্রমণ করে।  তারপর এলোপাথাড়ি কোপ মারতে খাকে। ফলস্বরূপ বিনায়গাম কিছুক্ষণ পরে রক্তাক্ত অবস্থায় মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। পরিস্থিতি আরও খারাপ হওয়ার সাথে সাথে বসু পালিয়ে যায়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য প্রেরণ করেছে। ঘটনাস্থলে উপস্থিত অন্যদের আটক ও জিজ্ঞাসাবাদ শেষে তারা মামলা দায়ের করে বসুর সন্ধান শুরু করে। তবে, এখনও ধরা পড়েনি সে।