লকডাউনে মদ না পেয়ে স্পিরিট খেয়ে আত্মহত্যা দুজনের

মদ না পেয়ে স্পিরিট খেয়ে আত্মহত্যা দুজনের । দেশজুড়ে চলছে 21 দিনের লকডাউন। এরইমধ্যে দেশে সব রকম দোকান বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছে কেন্দ্র সরকার। কিন্তু যারা প্রতিদিন মদ খান তারা ক্রমশ অস্থির হয়ে উঠেছেন। তাদের দাবি মিষ্টি, নয় মদের দোকান খোলা হোক।

মদ খেতে না পাওয়ায় অনেকে আবার আত্মহত্যাও করছেন। দক্ষিণ ভারতের কয়েকটি রাজ্যে এরকম আত্মহত্যার অনেকগুলি ঘটনা ঘটেছে। ফলে চিন্তায় পড়েছে সরকার।

[আরও পড়ুনঃ করোনা মোকাবিলায় মোদির ত্রাণ তহবিলে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিলেন মমতা]

গত সাত দিনে কেরলে প্রায় ছয় জন আত্মহত্যা করেছেন বলে জানা গিয়েছে। ইতিমধ্যে কেরল সর্কার প্রেসক্রিপশন দেখিয়ে মদ কেনার ব্যবস্থা করেছেন। কিন্তু তাতেও সমস্যা দেখা দিয়েছে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন এমনটা হতে থাকলে আগামী কিছুদিনের মধ্যে আরও আত্মহত্যার সংখ্যা বাড়বে। লকডাউন এর কারনে যারা নিয়মিত নেশা করেন তারা লকডাউন এর শোক কাটিয়ে উঠতে পারছেন না। তার ফলে বাড়িতে শুরু হয়েছে অশান্তি।

কর্নাটকের সরকার শুধুমাত্র অ্যালকোহল বিক্রি করেই বছরে কুড়ি হাজার টাকা লাভ করেন।তাই লকডাউন থাকাকালীন মদ বিক্রি হওয়া বন্ধ হওয়ায় রাজস্ব আদায় সরকারের অনেকটাই কমবে বলে মনে করা হচ্ছে।

শুধুমাত্র কেরালা কর্ণাটক নয় পাওয়ার কারণে আত্মহত্যা করেছেন জোরহাট এর আরো দুই ব্যক্তি বলে জানা গিয়েছে। তাদের দুজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানা গেছে।