বিশ্বের সবথেকে সুন্দর হাতের লেখার অধিকারি ‘প্রকৃতি মাল্লা’, ঝড়ের গতিতে ভাইরাল নেটদুনিয়ায়

1616

বাচ্চা মেয়েটি পড়াশোনা করে অষ্টম শ্রেণীতে। কিন্তু তার পরিচিতি গোটা বিশ্ব জুড়ে। গোটা বিশ্বের মানুষ ছোট্ট মেয়েটিকে চেনেন। কিন্তু সে কী এমন করেছে যার জন্য তার এত জনপ্রিয়তা! আসলে এত অল্প বয়সে তার এত সুন্দর হাতের লেখা নিখুঁতের একেবারে কাছাকাছি। এই মতটি বিশেষজ্ঞদের যারা ফন্ট সম্বন্ধে অবগত। ছোট্ট মেয়েটির নাম প্রকৃতি মাল্লা। সে নেপালের অধিবাসী। কয়েকমাস আগে নেপালের এক ব্যক্তি প্রকৃতি মাল্লার হাতের লেখার একটি ছবি তুলে তা সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করে দেন।

আরও পড়ুন:   ছেলের লেখা পড়ার জন্য নিজেদের শেষ সম্বল বাড়িটাকেও বিক্রি করেছিলেন বাবা-মা, আইপিএস অফিসার হয়ে বাড়ি কিনলেন সেই ছেলে

আর এরপরই তা ভাইরাল হতে সময় নেয়নি। এত অল্প বয়সে এত সুন্দর হাতের লেখার জন্য মেয়েটিকে নেপালি সশস্ত্র বাহিনী থেকে তাকে পুরস্কৃত করা হয়। প্রকৃতি মাল্লা সৈনিক আওয়াসিয়া মহাবিদ্যার ছাত্রী। তার হাতের লেখা পৃথিবীরলল সবথেকে সুন্দর হাতের লেখার স্থান অধিকার করে আছে।

আরও পড়ুন:   সন্তানকে বাঁচাতে ভয়ঙ্কর সাপের সাথে তুমুল লড়াই করল মা মুরগি, মুহূর্তে ভাইরাল ভিডিও

যদিও এই ভাইরাল হওয়া ঘটনাটি অনেকদিনের পুরোনো কিন্তু তা মানুষের মনে অনেকটাই জায়গা করে নিয়েছে। ছোট্ট মেয়েটি শুধুমাত্র তার হাতের লেখার কারণে আজ গোটা বিশ্বে পরিচিত।

তার হাতের লেখা দেখে যে কেউ বলবে সেটি কম্পিউটারের ফন্ট। মাঝেমধ্যে প্রকৃতি মাল্লার হাতের লেখা এমএস ওয়ার্ডের চেয়েও আরও বেশি সুন্দর হয়। অনেকে তার সুন্দর হাতের লেখাকে কম্পিউটারের ফন্ট ভেবে ভুল করতে পারে। তার লেখার মধ্যে যে ফাঁকা জায়গাগুলি থাকে তা একদম সমান। এই কারণে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, তার হাতের লেখা নিখুঁতের প্রায় কাছাকাছি। বাচ্চা মেয়েটির হাতের লেখা সবাইকে অনুপ্রেরণা জোগায়।